মেইন ম্যেনু

মৃত মানুষের সাথে যোগাযোগের পাঁচ পদ্ধতি!

মৃত্যু মানব জীবনের আর দশটা স্বাভাবিক ব্যাপারের মতনই অতি পরিচিত একটি ঘটনা হলেও কাছের আর ভালোবাসার মানুষের মৃত্যু মেনে নেওয়া সবার জন্যেই কষ্টকর। মৃত্যুর পরেও তাই প্রিয় মানুষগুলোর সাথে, তাদের আত্মার সাথে কথা বলতে চেয়েছে মানুষ সবসময়। সেটা যে কোন উপায়েই হোক। আর অবিশ্বাস্য ব্যাপার হলেও সত্যি যে কেউ কেউ মনে করেন তাঁরা আসলেই মৃত প্রিয়জনের সাথে যোগাযোগ করতে পেরেছেন! পেরেছেন মৃতদের সাথে কথা বলতে! কিন্তু কী করে? আসুন জেনে নিই মৃতদের সাথে কথা বলবার জন্যে তৈরি করা প্রাচীন মানুষদের পাঁচটি পদ্ধতি। এগুলো কাজ করে কি করে না, সেটা অবশ্য কেবল নিজে যাচাই করেই জানা সম্ভব!

১. ওইজা বোর্ড
মৃতদের সাথে কথা বলার একটি অন্যতম জনপ্রিয় মাধ্যম হচ্ছে ওইজা বোর্ড। এতে অনেকগুলো অক্ষর সাজানো থাকে যেগুলো ধরে ধরে কথা বলে মৃত ব্যক্তির আত্মা জীবিত মানুষের সাথে। কথা শুরু করার আগে স্রষ্টার প্রতি প্রার্থনা করে নেওয়া নিয়ম। এতে করে সমস্ত বাজে আত্মার কাছ থেকে আশ্রয় চেয়ে নেওয়া হয় যাতে কোন রকম ক্ষতি না করতে পারে আত্মারা। ওইজা বোর্ড ব্যবহারের সময় কোনরকম মাদক গ্রহণ করাও নিষিদ্ধ। ভালো আত্মাদের ডাকার জন্যেই প্রাচীনকাল থেকে ওইজা বোর্ড ব্যবহৃত হয় বেশি।

২. টেবিল টিপিং
টেবিল টিপিং করে আত্মাকে ডেকে আনবার ক্ষেত্রেও প্রার্থনা করাটা নিয়ম। তবে এখানে একজন নয়, মোট চারজনকে গোলাকার একটি টেবিলের চারপাশে বসতে হয়। সবাইকে টেবিলের ওপর হাত ছড়িয়ে বসতে হয়। এরপর চোখ বন্ধ করে ভাবতে হয় নিজের চারপাশে এক সাদা আলোর ঝলকানিকে। এতে করে আত্মাদেরকে নিজেদের আগ্রহের কথা জানানো হয় বলে মনে করা হয়। এরপর আত্মাকে বারবার বলা হয় টেবিলের ওপরে এসে বসতে। আত্মা আসলে টেবিল কাঁপতে থাকে এবং একসময় প্রচন্ডভাবে নড়তে থাকে। তখনই কথা বলা যায় আত্মার সাথে।

৩. টর্চলাইট পদ্ধতি
এ পদ্ধতিটিতে একটি টর্চলাইট নিয়ে সেটাকে উপুড় করে রাখতে হবে একদম নিরেট মেঝের ওপর। এরপর চোখ বুজে ডেকে যেতে হবে ভালো কোন আত্মাকে। যদি আত্মা আসে তাহলে প্রশ্ন করে কথা বলা যাবে। প্রশ্নের উত্তর হ্যাঁ হলে টর্চ জ্বলে উঠবে, অন্যথায় নিভে যাভে সেটি। তবে আর সবগুলোর মতন এক্ষেত্রেও প্রথমে প্রার্থনা করে নেওয়াটা নিয়ম।

৪. সয়ংক্রিয় লেখনী
এই পদ্ধতিতে আত্মাদের সাথে কথা বলার জন্যে আপনার দরকার হবে অনেকগুলো সাদা পৃষ্ঠার। কারণ এখানে আত্মার কথা বলে লেখার মাধ্যমে। প্রথমে প্রার্থনা সেরে নিয়ে হাতের পেন্সিলটা কাগজের ওপরে রাখতে হবে আর কল্পনা করতে হবে উজ্জ্বল কোন সাদা আলোকে। এ পদ্ধতিটি কার্যকর করার জন্যে দরকার কাগজ, পেন্সিল আর কল্পনার সাথে সাথে যথেষ্ট মনযোগের। প্রাণপণে ডেকে যেতে হবে কাঙ্ক্ষিত আত্মাকে। সে চলে এলে নিজ থেকেই হাত চলতে শুরু করবে পেন্সিল ধরে থাকা মানুষটির।

৫. স্ফটিকের বল
এই পদ্ধতিটি অনুসারে একটি স্ফটিকের বল, কাঁচ কিংবা কোনরকম স্বচ্ছ জিনিসকে রাখতে হবে আপনার সামনে। সেই সাথে ঘরে থাকতে হবে হালকা আলো আর মোমবাতি। মোমবাতিটি জ্বালানোর পর যোগব্যায়ামের আসনে বসুন এবং ধৈর্য্য ধরুন। প্রাচীনকালে কাঁচ বা স্ফটিক না থাকলে পানি ব্যবহার করতো মানুষেরা এভাবে আত্মাকে ডেকে আনতে। খুব শান্ত থাকুন আর খানিক বাদে মাথা চক্কর দিয়ে উঠলে বা এলোমেলো লাগলেও একইভাবে উত্তেজনা ছাড়াই থাকার চেষ্টা করুন। অতীত, ভবিষ্যত এবং আত্মাদের দেখতে পাবেন আপনি। তবে কথা বলতে পারবেন না তাদের সাথে যতক্ষণ না তারাও আগ্রহ নিয়ে আপনার সাথে কথা বলতে না আসে।সুত্র-ওয়েবসাইড



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই