মেইন ম্যেনু

মেট্রোরেলে কি সুবিধা ভোগ করবে ঢাকা?

মেট্রোরেল চালু হলে ঢাকার উত্তরা থেকে ব্যস্ত বাণিজ্যিক এলাকা মতিঝিল পর্যন্ত পৌছাতে নাকি ৩৮ মিনিটের মতো লাগবে। আজ ঢাকায় সেই আশার বানী শোনা গেলো বাংলাদেশের কর্মকর্তাদের মুখ থেকে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের প্রথম মেট্রোরেল প্রকল্পের নির্মাণ কাজের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করলেন আজ। কর্মকর্তার বলছেন, উত্তরা থেকে মিরপুর হয়ে মতিঝিল পর্যন্ত মেট্রোরেলের মোট ১৬ টি স্টেশন থাকবে।

মেট্রোরেল মূলত পল্লবী হয় রোকেয়া সরণি ধরে এগুবে। শাহবাগ, টিএসসি হয়ে চলে যাবে বাংলাদেশ ব্যাংক পর্যন্ত। এর মাঝে ঢাকার ব্যস্ত ফার্মগেট সহ মেট্রোরেল থামবে গুরুত্বপূর্ণ সব স্টেশনে।

মেট্রোরেলে ২৪ টি ট্রেন প্রতি ঘণ্টায় আপ ও ডাউন রুটে ৬০ হাজার যাত্রী আনা নেয়া করতে সক্ষম হবে বলে দাবি করছেন কর্মকর্তারা।

সবকিছু ঠিকঠাক গেলে ২০১৯ সালের মধ্যে আগারগাও পর্যন্ত এর কাজ শেষ হবে বলে আজ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে জানিয়েছেন যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা।

আর বাংলাদেশ ব্যাংক পর্যন্ত কাজ শেষ করার পরিকল্পনা এর পরের বছরের মধ্যে। প্রায় ২২ হাজার কোটি টাকার এই প্রকল্পে জাপানের আন্তর্জাতিক সাহায্য সংস্থা জাইকা দিচ্ছে প্রায় ১৭ হাজার কোটি টাকা।

ঢাকার রাস্তায় যানজটে নাকানি চুবানি খেতে হয় শহরের বাসিন্দাদের। পাবলিক ট্রান্সপোর্টের অভাবে অনেক সময় ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাড়িয়ে থাকতে হয় যাত্রীদের।

সিএনজি অটোরিকশা চালকদের হাতে জিম্মিও হতে হয়। এখন মেট্রোরেল কতটা সুবিধা বয়ে আনবে আর সময় মতো সেটি চালু হবে কিনা সেই অপেক্ষা করছেন ঢাকাবাসীদের অনেকে। -বিবিসি।






মন্তব্য চালু নেই