মেইন ম্যেনু

মেডিকেলের প্রশ্নফাঁসে কারা জড়িত সরকার তা জানে : এরশাদ

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা পুনরায় হওয়ায় প্রয়োজন বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়ার পরও সরকার বলছে সব ঠিক আছে। প্রশ্নপত্র ফাঁসের সঙ্গে কারা জড়িত আছে সরকার তা জানে।

তাই আন্দোলন করে কোনো লাভ হবে কি না; তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেন এরশাদ।

৫ দিনের সফরে রংপুর পৌঁছে নিজের ‘পল্লী নিবাস’ বাসভবনে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন এরশাদ।

তিনি বলেন, প্রশ্নপত্র ফাঁসের মধ্য দিয়ে অ-মেধাবী যারা ডাক্তার হবে তাদের জন্য জনগণের ভোগান্তি বাড়বে, ভুল চিকিৎসায় তাদের হাতে রোগী মারা যাবে।

জাপা চেয়ারম্যান আরো বলেন, দেশে সুশাসনের অভাব তাই দেশে এখন মানুষের নিরাপত্তা নেই। দেশে এখন মাছি মারার চেয়েও মানুষ মারা সহজ। কিন্তু কারো কিছু করার নেই, এভাবেই দেশ চলবে, আমাদের তা মেনে নিতে হবে।

তিনি আরো বলেন, ‘প্রশ্নপত্র ফাঁসের মতো অনৈতিক কর্মকাণ্ড অবিলম্বে বন্ধ করার জন্য সরকারের কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা উচিত। এর সঙ্গে জড়িতদের কঠোর শাস্তি দেওয়া উচিত, যাতে ভবিষ্যতে আর কেউ এ ধরনের কাজ করতে সাহস না পায়। সমাজের সর্বস্তরে যে অবক্ষয় শুরু হয়েছে তা প্রতিরোধ করতে না পারলে জাতি হিসেবে আমাদের অস্তিত্ব বিপন্ন হয়ে পড়বে। এখনই এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা উচিত’।

এরশাদ বলেন, ‘দেশে সু-শাসনের বড় অভাব, তাই দেশে এখন মানুষের জান মালের কোন নিরাপত্তা নেই। সরকার যেভাবে কর্মখর্তাদের বেতন বৃদ্ধি করেছে, সে হারে শিক্ষকদের বেতন না বাড়ালে তারা স্কুল-কলেজে যাওয়া বন্ধ করে আন্দোলনে যাবার ঘোষণা দিয়েছে। শিক্ষা বন্ধ হলে জাতি বন্ধ হয়ে যাবে। আমার মনে হয় সরকার তাদের দাবি মেনে নিতে বাধ্য হবে’।

সাবেক রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘দেশের মানুষ আওয়ামী লীগ ও বিএনপি এ দুইদলকে আর ক্ষমতায় দেখতে চায় না। মানুষ চায় পরিবর্তন। এই পরিবর্তন আনতে প্রয়োজন জাতীয় পার্টির। কারণ জাপার ৯ বছর দেশের মানুষ ছিল শান্তিতে। সে সময় জিনিসপত্রের দাম ছিল মানুষের নাগালেন মধ্যে। ছিল না ছিনতাই খুন। মানুষ নির্ভয়ে রাতদিন চলাফেরা করতে পারত। কিন্তু এখন তা পারছে না।

‘এজন্যই দেশের মানুষ জাতীয় পার্টিকে আবার রাষ্ট্র ক্ষমতায় দেখতে চায়। আর সে লক্ষ্য নিয়ে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। ইনশাল্লাহ আগামীতে জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় যাবে’। আর এজন্য তিনি জাতীয় পার্টির সকল নেতাকর্মীকে ভেদাভেদ ভুলে একসাথে কাজ করার আহবান জানান।

পল্লী নিবাস বাসভবনে মতবিনিময়কালে উপস্থিত ছিলেন জাপা প্রেসিডিয়াম সদস্য সাবেক মন্ত্রী জিএম কাদের, রংপুর জেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক সাবেক এমপি মোফাজ্জল হোসেন মাস্টার, সদস্য সচিব সাবেক এমপি ও এরশাদের ভাতিজা হোসেন মকবুল শাহরিয়ার আছিফ, মহানগর জাপার আহবায়ক মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা, সদস্য সচিব এসএম ইয়াসির প্রমুখ।






মন্তব্য চালু নেই