মেইন ম্যেনু

মেডিকেলে ভর্তিযুদ্ধ : প্রতি আসনের বিপরীতে লড়বেন ২৩ শিক্ষার্থী

সকল জল্পনার অবসান ঘটিয়ে শেষ পর্যন্ত চলতি বছর সরকারি-বেসরকারি মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজের ভর্তি পরীক্ষায় রেকর্ড সংখ্যক মোট ৮৪ হাজার ৭৮৪ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করতে যাচ্ছেন। সরকারি মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজ ভর্তির জন্য প্রতি আসনের বিপরীতে প্রায় ২৩ জন শিক্ষার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। বুধবার রাত ১২টা ১মিনিটে আবেদনপত্র গ্রহণের সময়সীমা শেষ হয়।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পূর্ব ঘোষণা অনুসারে আগামী ১৮ সেপ্টেম্বর স্বাস্থ্য অধিদফতরের অধীনে কেন্দ্রীয়ভাবে সারাদেশে অভিন্ন প্রশ্নপত্রে সরকারি ও বেসরকারি উভয় মেডিকেল কলেজে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। কাল ১০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত ১০০ নম্বরের নৈর্ব্যক্তিক প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। মোট ১০০ নম্বরের মধ্যে পদার্থবিদ্যায় ২০, রসায়নবিদ্যায় ২৫, জীববিদ্যা ৩০, ইংরেজিতে ১৫ ও সাধারণ জ্ঞানে ১০ নম্বর থাকবে।

স্বাস্থ্য অধিদফতর সূত্রে, আবেদনকারীর সংখ্যা লাখের কাছাকাছি পৌঁছে যেতে পারে বলে জানালেও বৃহ¯পতিবার জানান, প্রায় ৯৫ হাজার শিক্ষার্থী অনলাইনে আবেদনপত্র পূরণ করলেও শেষ পর্যন্ত সবাই টাকা জমা দেয়নি। তবে স্বাধীনতার পর কোন বছর মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজের ভর্তি পরীক্ষায় এত বিপুল সংখ্যক আবেদনপত্র জমা পড়েনি বলে জানান ওই কর্মকর্তা।

স্বাস্থ্য অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, মোট ৮৪ হাজার ৭৮৪ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে ৭টি সরকারি মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজের প্রত্যেকেটিতে ৬ হাজারটি করে আবেদন জমা পড়েছে। এগুলো হলো- ঢাকা, চট্টগ্রাম, স্যার সলিমুল্লাহ মিটফোর্ড, শহীদ সোহরোওয়ার্দী, ময়মনসিংহ, রাজশাহী মেডিকেল ও ঢাকা ডেন্টাল কলেজ মিরপুর।

এছাড়া অন্যান্য সরকারি মেডিকেল কলেজের মধ্যে সিলেটে ৫ হাজার ২০৭, বরিশালে ৩ হাজার ৫৪, রংপুরে ৫ হাজার ৬৬৮, কুমিল্লায় ৫ হাজার, খুলনায় ৩ হাজার ৬৩২, বগুড়ায় ৪ হাজার ১৫৯, ফরিদপুরে ১ হাজার ৫৪৩, দিনাজপুরে ১ হাজার ৫০৫, পাবনায় ১ হাজার ৯৭৪, নোয়াখালীতে ২ হাজার ৭৮৩, কক্সবাজারে ১ হাজার ৭৩০, যশোরে ১ হাজার ৯৪৫, সাতক্ষীরায় ২৮১, কিশোরগঞ্জে ২ হাজার ৬৯৯, কুষ্টিয়ায় ১ হাজার ২৪৭ ও গোপালগঞ্জে ৩৫৫টি আবেদন জমা পড়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক (চিকিৎসা শিক্ষা ও জনশক্তি উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. এ বি এম আবদুল হান্নান জানান, চলতি বছরের সরকারি বেসরকারি মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজে রেকর্ড সংখ্যক প্রায় ৮৫ হাজার শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করবে। তিনি শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন মেডিকেল ভর্তি কোচিং সেন্টারের বিজ্ঞাপনে প্রতারিত না হয়ে মনোযোগ সহকারে পাঠ্যবই পড়াশুনার পরামর্শ দেন।






মন্তব্য চালু নেই