মেইন ম্যেনু

মেডিটেশনের ৬টি ক্ষতিকর দিক

মেডিটেশন কি শুধুই উপকারি? নাকি এর বিরূপ কোন প্রতিক্রিয়াও আছে? মনে শান্তি আনার উদ্দেশ্যে, ধৈর্য্য, আত্মবিশ্বাস বাড়াতে মেডিটেশন যেন একমাত্র উপায়। দিনকে দিন এর জনপ্রিয়তাও বাড়ছে। কিন্তু মেডিটেশন বা ধ্যানেরও যে কিছু খারাপ দিক থাকতে পারে তা কি ভেবেছি আমরা কখনো?

আসুন প্রখ্যাত মনোবিজ্ঞানী ইতাই ইভতজেন মেডিটেশনের বিপদ সম্পর্কে কী বলেছেন জেনে নিই। তিনি ইস্ট লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়ের এপ্লাইড পজিটিভ সাইকোলজি প্রোগ্রামের সিনিয়র প্রভাষক এবং প্রোগ্রাম লিডার।

মেডিটেশনের সঠিক উপায়
অনেক বই বা সিডি পাওয়া যায় বাজারে মেডিটেশন সম্পর্কে। প্রত্যেক বাজারজাতকরণ প্রতিষ্ঠান দাবি করেন তাদের বলা পদ্ধতিটিই সঠিক মেডিটেশন পদ্ধতি। মেডিটেশনের একটা দারুণ ব্যাপার হল এটি আমরা মস্তিষ্কেই চর্চা করতে পারি। এর একটাই বিশেষ কোন অনুশীলনী থাকতে পারে না। কিন্তু ভুল পদ্ধিতিতে ধ্যান আপনার ক্ষতির কারণ হতে পারে। কল্পনাশক্তি, মনোযোগকে বিঘ্নিত করতে পারে।

ক্ষতিকর আবেগের সম্মুখীন হওয়া
মেডিটেশন করার সময় মানুষ সবচেয়ে বেশী নিজের কাছাকাছি যায়। এতে আপনি নিজের সেই সব আবেগের সংস্পর্শে চলে যান যেগুলো থেকে হয়ত পালিয়ে বেড়াচ্ছিলেন। মেডিটেশন আপনার ভেতর দাবিয়ে রাখা রাগ, ঘৃণা, হিংসা ইত্যাদি ভয়ংকর আবেগকে জাগিয়ে তুলতে পারে। আমরা মেডিটেশন করিই নিজেদের মধ্যকার অশুভ শক্তিকে হারিয়ে শুভ শক্তিকে সামনে নিয়ে আসার জন্য, যাতে আমরা ভাল থাকি, অন্যরাও ভাল থাকে। কিন্তু আমরা যদি কোনভাবে বিপরীত আবেগকে জাগিয়ে তুলি এতে নিজের এবং অন্যের মারাত্বক ক্ষতি হতে পারে।

‘সাদা আলো’ দেখা
আপনি নিশ্চই শুনেছেন, মানুষ মেডিটেশন করার সময় কল্পনার রাজ্যে চলে যায়। তারা অনুভব করে যে তারা উড়তে পারছে, তাদের পৃথিবী ছেয়ে যায় সাদা আলোতে। এই সাদা আলোর গল্প সবার ব্যাপারে সত্যি নাও হতে পারে। মানুষ যার যার মনোযোগের ধরণ অনুযায়ী ধ্যানের গভীরে প্রবেশ করে এবং নিজ নিজ স্বপ্ন, অপ্রাপ্তিকেই ধরতে পারে মনের আয়নায়। তাই আগে থেকে সাদা আলো দেখার প্রত্যাশা আপনাকে হতাশ করতে পারে।

দীর্ঘসময়ে কুফল
মেডিটেশন করে হয়ত আজকে আপনার ভাল লাগছে, মনে শান্তি ফিরে পাচ্ছেন, কারো উপর রাগে যাচ্ছেন না। কিন্তু দীর্ঘদিন মেডিটেশন করতে পারবেন তো? যদি চর্চা ধরে রাখতে না পারেন তবে আগের সমস্যা গুলো দ্বিগুন হারে ফিরে আসতে পারে। আর সারাজীবনই মেডিটেশনের নিয়মিত চর্চা কিন্তু না করতে পারাই স্বাভাবিক। কারণ আমরা মানুষ। এক সময় না এক সময় আমরা একঘেয়ে বোধ করি।

মেডিটেশন কোন থেরাপি নয়
ধ্যান একটি দীর্ঘ সময় চর্চার বিষয়। এতে মনের ক্ষত পূরণ হয়। সকল মানসিক সমস্যার সমাধান মেডিটেশন নয়। অনেক ব্যাপারেই হয়ত মনোরোগ বিশেষজ্ঞের কাছেই যেতে হবে আপনাকে। আপনার মনের জটিল অবস্থা কারো সাথে আলোচনা করে, পরামর্শ নিয়েই ভাল হতে পারে। আমরা যদি সব সমস্যার সমাধান মেডিটেশন ধরে নিই তাহলে আমাদের প্রকৃত মানসিক সমস্যা হয়ত অধরাই রয়ে যাবে আর চিকিৎসার অভাবে আরও অসুস্থ হয়ে যাব আমরা।

কল্পনায় অভ্যস্ততা
ধ্যানের সময় মনকে শান্তি দিতে আমরা নানান কল্পনার আশ্রয় নিয়ে থাকি। কখনো নিজের মনকে নিয়ে যাই পাহাড়ে, কখনো ঝর্ণার কাছে, কখনো মেঘের কাছে। কিন্তু এগুলো কিছুই বাস্তবসম্মত নয়। কল্পনার জগতে এই বসবাস আপনার বাস্তব জীবনকে ক্ষতিগ্রস্থ করতে পারে। জীবন তো আসলে নাটক নয়। সমস্যাগুলোকে সরাসরিই মোকাবেলা করে তবেই জীততে পারা যায়। তাই কল্পনার এই অভ্যস্ততা ক্ষতিকর হতে পারে।

মেডিটেশন অবশ্যই উপকারি। ক্ষতিকর দিকগুলো জেনে ধ্যান করা বন্ধ করে দেবেন তা কিন্তু এই লেখার মূল বক্তব্য নয়। নিজেকে নিয়ন্ত্রণে রেখে এর ক্ষতিকর দিকগুলোকে সামলে ধ্যানের চর্চা করে যান। কাঙ্ক্ষিত মানসিক শান্তি আপনি অবশ্যই পাবেন।






মন্তব্য চালু নেই