মেইন ম্যেনু

মেসির লালসার শিকার প্যারাগুয়ের মডেল!

লিওনেল মেসির ভাবমূর্তি স্বচ্ছ। কর কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে পড়েছেন ঠিকই। কিন্তু নারীঘটিত কেলেঙ্কারিতে তিনি জড়িয়ে পড়েছেন, এমন নজির খুব একটা নেই। যাঁরা এই দলে, তাঁরা কিন্তু মুর্খের স্বর্গে বাস করছেন। মেসির বিরুদ্ধেও যৌন কেলেঙ্কারির অভিযোগ রয়েছে। বার্সেলোনা তারকার বিরুদ্ধেও নারীঘটিত কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে পড়ার একাধিক অভিযোগ উঠেছে।

মেসির বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন মহিলা অভিযোগ এনেছেন। এই তো দিনকয়েক আগে আর্জেন্তাইন মডেল জোয়ানা গনজালেজ মেসির শয্যাসঙ্গী হয়েছিলেন বলে দাবি করেছিলেন। মেসি কোনও মন্তব্য করেননি ঠিকই। তাই বলে মেসিকে ক্লিনচিট দেওয়া যাবে না।

বেশ কয়েকবছর আগে ল্যারিসা রিকলমেও একই অভিযোগ এনেছিলেন বার্সার বর্শার বিরুদ্ধে। অনেকেই রিকলমের এ হেন বক্তব্য শুনে বলেছিলেন, খুব সহজে নাম কেনার জন্যই মেসির সঙ্গে নিজের নাম জড়িয়েছেন রিকলমে। ল্যারিসা রিকলমে প্যারাগুয়ের নামী মডেল। উত্তেজক মন্তব্য করার জন্য বিখ্যাত হয়ে রয়েছেন তিনি। দক্ষিণ আফ্রিকা বিশ্বকাপের সময়ে ল্যারিসা রিকলমে বলেছিলেন, ‘‘আমার দেশ প্যারাগুয়ে বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন হলে আমি নগ্ন হব।’ রিকলমের এ হেন উচ্চাশা পূরণ হয়নি। এই ল্যারিসা রিকলমেই এক টেলিভিশন প্রোগ্রামে গিয়ে মেসির বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ এনেছেন।

বেশ নাটকীয় ভাবে এক টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে ল্যারিসা রিকলমে বলেছেন, ‘জানেন আমার সঙ্গে সেক্স করার জন্য কে টাকা দিতে চেয়েছিল?’ সেই সাক্ষাৎকারের সময়ে উপস্থিত থাকা আর্জেন্তাইন গায়িকা পাবলিটো রুইজ চিৎকার করে বলে ওঠেন, ‘ইট ওয়াজ মেসি।’ সঙ্গে সঙ্গে ল্যারিসা রিকলমে বলতে শুরু করেন, ‘একদম ঠিক।’ তার পরে সুর চড়িয়ে প্যারাগুয়ান এই মডেল বলেন, ‘আমিও যেমন তেমন মেয়ে নই। অর্থ দিয়ে সেক্স কেনা যায় না।’

মেসি অবশ্য ল্যারিসা রিকলমের এমন দাবির বিরুদ্ধে মুখ খোলেননি। বিষয়টাও বহুদিনের পুরনো। চুপ করে থাকাই শ্রেয় বলে সেই সময়ে মনে করেছিলেন তিনি। তবে শুধু ল্যারিসা রিকলমে নন, একাধিক নারীই মেসির বিরুদ্ধে কেচ্ছার অবিযোগ এনেছেন। যা রটে তার তো কিছুটা সত্যিই!এবেলা






মন্তব্য চালু নেই