মেইন ম্যেনু

মেয়ের বিয়ে দিলে ওবামা পাবেন ৫০ গরু, ৭০ ভেড়া

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার ১৬ বছরের মেয়ে মালিয়ার বিয়ে হচ্ছে কেনিয়ায়। পাত্র বছর পঞ্চাশের এক আইনজীবী। বাড়ি ওবামার আদিপুরুষের বাসস্থানের দেশটিতেই। বিয়ের যাবতীয় কার্যক্রম হাসিমুখে তদারক করছেন মেয়ের বাবা, বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর ব্যক্তিটি। তাঁর মন আজ বেশ ফুরফুরে, হবেই না কেন? বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শেষ হওয়ার আগেই পাত্র স্বয়ং মেয়ের বাবার হাতে তুলে দিয়েছেন ৫০টি গরু, ৭০টি ভেড়া ও ৩০টি ছাগল!

কি, হাসছেন তো? বাস্তবেই ওবামার মেয়েকে বিয়ে এবং বিয়েতে এমনতর উপঢৌকন দেওয়ার প্রস্তাব পাঠিয়েছেন কেনিয়ার নাইরোবি শহরের আইনজীবী ফেলিক্স কিপ্রানো।

আসছে জুলাই মাসে যখন ওবামা কেনিয়া সফরে যাবেন, তখন এ বিয়ের বিষয়ে আলোচনা করতেও প্রস্তুত বলে কেনিয়া টাইমসকে জানিয়েছেন ফেলিক্স। আর ওই সফরের সময় তিনি যেন মালিয়াকে সঙ্গে আনেন, সেই অনুরোধ জানিয়ে তিনি ওবামাকে একটি চিঠিও লিখছেন। এবং তাঁর আশা ওবামা তাঁকে নিরাশ করবেন না।

ফেলিক্সের কথায়, ‘২০০৮ সালে মালিয়ার বয়স যখন ১০ তখন, প্রথম তার প্রেমে পড়ি আমি। তাকে ভালোবাসার পর থেকে এখন পর্যন্ত কারো সাথে ডেটেও যায়নি আমি। ওর প্রতি বিশ্বস্ত থাকার অঙ্গীকারও নিয়েছি আমি। এই বিষয়ে এরই মধ্যে পরিবারের সঙ্গে কথা বলেছি। তাঁরা আমার জন্য বধূমূল্য (আফ্রিকার নিয়মানুযায়ী বিয়েতে কনের বাবাকে দেওয়া পণ) বাড়াতেও রাজি আছেন।’

ফেলিক্সের দাবি, শুধু ওবামার ক্ষমতা বা অর্থের জন্য মালিয়ার প্রতি তাঁর ভালোবাসা জাহির করছেন না তিনি। মালিয়ার প্রতি তাঁর ভালোবাসা নিখাদ। ওবামা তথা মালিয়ার পূর্বপুরুষ কেনিয়া থেকেই। তাই দুজনের জমবে বেশ।

কেনিয়া টাইমসকে ফেলিক্স আরো জানান, ওবামা ও তাঁর পরিবার একই উপজাতির। নিজেকে কালেঞ্জিন উপজাতির দাবি করে প্রেমে পাগল ৫০ বছরের এই তরুণ বলেন, ‘আমাদের উপজাতির বিশেষ কিছু রেওয়াজ রয়েছে। সেই রেওয়াজ মেনেই বিয়ের প্রস্তাব দিতে চান তাঁর স্বপ্নের রাজকুমারীকে।’

আরো অনেক কিছুই ভেবে রেখেছেন তিনি। যেমন, বিয়ের পর তিনি ও মালিয়া খুব সাধারণ জীবনযাপন করবেন। বিয়ের পর তিনি মালিয়াকে শেখাবেন কীভাবে গরুর দুধ দোহাতে হয়, উগালি (আফ্রিকার জনপ্রিয় খাবার) বাঁধতে হয়। এ ছাড়া অন্যান্য স্থানীয় মহিলা কীভাবে মুরসিক (আফ্রিকার হাতে বোনা বিশেষ কাপড়) তৈরি করে তাও শেখাবেন তিনি।






মন্তব্য চালু নেই