মেইন ম্যেনু

মোস্তাফিজ-সৌম্যের সাতক্ষীরায় বইছে ক্রিকেট জোয়ার

অজপাড়া গাঁ থেকে উঠে আসা বিশ্ব কাপানো ক্রিকেট তারকা মোস্তাফিজুর রহমান ও সৌম্য সরকার এখন সাতক্ষীরার মডেল। তাদেরকে অনুসরণ করেই সাতক্ষীরার ক্ষুদে ক্রিকেটাররা প্রবল আগ্রহ নিয়ে এগিয়ে চলেছে। মুস্তাফিজ ও সৌম্য যার হাত ধরে এতোদূর এগিয়েছে সেই ক্রিকেট কোচ মুফাসিন্নুল ইসলাম তপু ও আলতাফ হোসেন তাদের ক্রিকেট জগত নিয়ে এখন ব্যবস্ত সময় কাটাচ্ছেন। সাতক্ষীরায় এখন চলছে ক্রিকেট জোয়ার।

ক্ষুদে ক্রিকেটারদের প্রবল আগ্রহের পাশাপাশি তাদের অভিভাবকরাও তার সন্তানকে ক্রিকেট বিম্ময় বালক মোস্তাফিজ বানাতে চাই। বিধায় মোস্তাফিজ আর সৌম্যের সাতক্ষীরা এখন জমজমাট।

সাতক্ষীরা জেলা শহর থেকে প্রায় ৪০ কিলোমিটার দূরের গ্রাম কালিগঞ্জ উপজেলার তেঁতুলিয়া। অজপাড়া গাঁয়ের এই তেঁতুলিয়া গ্রামেই জম্ম ক্রিকেট বিস্ময় বালক খ্যাত মোস্তাফিজুর রহমান। ওই গ্রামের আলহাজ্ব আবুল কাশেম ছেলে মোস্তাফিজুর রহমান।

বেশি দিন আগের কথা নয়। মাত্র তিন বছর আগে ২০১২ সালে সাতক্ষীরা জেলা ক্রিড়া সংস্থার ক্রিকেট কোচ আলতাফ হোসেনের নজরকাড়ে মোস্তাফিজুর রহমান। আলতাফ কালিগঞ্জের তেঁতুলিয়া মাঠে প্রশিক্ষণ দিতে গিয়ে মোস্তাফিজুর রহমানের খেলা দেখে বুঝতে পারেন, তার মধ্যেই লুকিয়ে রয়েছে আগামী দিনের ভবিষ্যৎ। কোচ আলতাফ তাকে পরামর্শ দেন জেলা পর্যায় অনুর্দ্ধ-১৪ বাছায় পর্বে অংশ নিতে। আলতাফের পরামর্শ পেয়েই ২০১২ সালে অনুর্দ্ধ-১৪ বাছায় পর্বে অংশ নিতে সাতক্ষীরা সরকারি কলেজ মাঠে প্রথম আসেন মোস্তাফিজ। সেই থেকেই যাত্রা শুরু মোস্তাফিজের।

২০১২ সালে সাতক্ষীরা সরকারি কলেজ মাঠে জেলা কোচ মুফাসিন্নুল ইসলাম তপুর সাথে প্রথম পরিচয় মোস্তাফিজের। অনুর্দ্ধ-১৪ বাছায় পর্বে অংশ নিতেই মুস্তাফিজ ৪০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে সাতক্ষীরা সরকারি কলেজ মাঠে আসা শুরু করেন। এর পর থেকে তাকে আর পিছু হটতে হয়নি। শুরু হয় এগিয়ে যাওয়া।

ক্রিকেট কোচ তপু ও আলতাফ জানান, সাতক্ষীরার অহংকার মোস্তাফিজুর রহমান বিশ্ব সেরা ক্রিকেটার খ্যাতি অর্জনের পর সাতক্ষীরার ক্রিড়া অঙ্গন এখন জমজমাট।

শুধু মোস্তাফিজ নয়, সাতক্ষীরার কৃতি সন্তান সৌম্য সরকার, রবিউল ইসলাম শিবলু জাতীয় দলে জায়গা করে নিয়েছে। তারাও বর্তমানে মাঠ কাপানো খেলোয়াড়। তাদের দেখাদেখি সাতক্ষীরার ক্ষুদে ক্রিকেটারদের মধ্যে প্রবল আগ্রহ বেড়েছে। অভিভাবকদের মধ্যেও কম নয়।

সাতক্ষীরা সরকারি কলেজ মাঠ ও সাতক্ষীরা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে নিয়মিত চলছে ক্ষুদে ক্রিকেটারদের প্রাকটিস।

তারা আরও জানান, সাতক্ষীরার ক্ষুদে ক্রিকেটারদের মধ্যে এখন বইছে ক্রিকেট জোয়ার। কিন্তু যে মাঠ দু’টিতে তারা প্রাকটিস করছে সেখানে প্রয়োজনীয় পরিবশে নেই। একটু বৃষ্টি হলেই মাঠে প্রাকটিস করার পরিবেশ থাকে না। জমছে হাঁটু পানি আর কাদা। সরকারের কাছে তাদের দাবি, উপযুক্ত খেলার মাঠ ও পরিবেশ তৈরী করে দেয়ার।

সাতক্ষীরার ক্রিকেট প্রেমীদের দাবি, এক সময় যে মাঠে দাপিয়ে খেলা করতো মুস্তাফিজ, সৌম্য ও শিবলু সেই মাঠটি ক্রিকেট খেলার জন্য অনুকূল পরিবেশ তৈরী করে দেয়ার। তাহলে এই মাঠেই তৈরী হবে মোস্তাফিজ ও সৌম্য সরকারের মতো বিশ্ব কাঁপানো ক্রিকেটারের।






মন্তব্য চালু নেই