মেইন ম্যেনু

টিআই’র বার্ষিক প্রতিবেদন

ম্যাচ ফিক্সিংয়ের ঝুঁকিতে বাংলাদেশ

বর্তমানে ক্রিকেট বিশ্বে প্রতিবছর ১৪৫ বিলিয়ন ডলারের বাজার সৃষ্টি হয়েছে। আর এই অর্থের প্রবাহ বেড়ে যাওয়ায় বিশ্ব ক্রিকেটাঙ্গনে দিন দিন অনিয়ম বাড়ছে বলে বার্লিনভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল (টিআই) এর ‘গ্লোবাল করাপশন রিপোর্ট : স্পোর্ট’ শীর্ষক এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

মঙ্গলবার রাজধানীর ধানমণ্ডিস্থ ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) কার্যালয়ে এই প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান প্রতিবেদনটি উপস্থাপন করেন।

প্রতিবেদনে বলা আছে, ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ভার্সন বিশেষ করে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) খেলোয়াড়, দল, সংগঠন এবং অন্য অংশীদারদের জন্য দ্রুত অর্থলাভ করার একটি উপায় হিসেবে বিবেচনা করা হয়। তাই ম্যাচ ফিক্সিং জড়িত ব্যক্তিরা এই ব্যবসার উদ্যোগের কোনো একদিকে সংশ্লিষ্টতার নামে এতো অনুপ্রবেশ করে খেলোয়াড়, আম্পায়ার, দল, সংগঠকদের সাথে সম্পর্কে গড়ে তোলো। এসব সম্পর্ক এক সময় যোগসাজশে খেলায় বিভিন্ন ধরনের ফিক্সিংয়ের ঘটনা ঘটায়।

বাংলাদেশ ম্যাচ ফিক্সিংয়ে ঝুঁকিতে উল্লেখ করে প্রতিবেদনে বলা আছে, বাংলাদেশ ক্রিকেট দল বৈশ্বিক ক্রিকেটে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। ক্রিকেট আমাদের অনেক গৌরবের বিষয়। সম্প্রতি বাংলাদেশ ক্রিকেট দল টেস্ট ও ওয়ানডে ম্যাচে ভালোও করছে। ব্যবসায়ীরা মুনাফা লাভের জন্য বিপিএলে যোগ দিচ্ছে। এর ফলে বিশ্বব্যাপী ক্রিকেটে ম্যাচ ফিক্সিং, স্পট ফিক্সিং, ইলিগ্যাল ব্যাটিংয়ের ঝুঁকি দিন বাড়ছে। বাংলাদেশের ক্রিকেটেও এ ঝুঁকি রয়েছে।

প্রতিবেদন উপস্থাপনকালে আরো উপস্থিত ছিলেন টিআইবির উপ-নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপক ড. সুমাইয়া খায়ের ও রিসার্চ অ্যান্ড পলিসি বিভাগের পরিচালক মোহাম্মদ রফিকুল হাসানসহ সংগঠনের অন্য কর্মকর্তারা।






মন্তব্য চালু নেই