মেইন ম্যেনু

ময়নাতদন্তে জেগে উঠল ‘লাশ’

ভারতের মুম্বাইয়ের সিওন হাসপাতালে যে ঘটনা ঘটেছে সেই দৃশ্য কেবল কমেডি সিনেমাতেই দেখা যায়। সাদা-কাপড়ে ‘মৃতদেহটি’ঢাকা, চিকিৎসক ছুরি-কাঁচি নিয়ে প্রস্তুত ময়নাতদন্তের জন্য। এরই মধ্যে জেগে উঠলো লাশ।

রোববার মুম্বইয়ের সুলোচনা শেঠি মার্গে অচৈতন্য অবস্থায় এক অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তি পড়ে আছেন বলে ফোন আসে সিওন থানায়। । পুলিশের একটি টহল দল দ্রুত ওই ব্যক্তিকে সিওন হাসপাতালে নিয়ে যায়। হাসপাতালের প্রধান মেডিক্যাল কর্মকর্তা রোহান রোহেকার তখন ডিউটিতে। পাল্‌স দেখেই তিনি বলে দিলেন, ‘মারা গিয়েছে’। দেহ ঢেকে দেওয়া হল সাদা চাদরে। পাঠিয়ে দেওয়া হল ‘লাশ’মর্গে।

ময়নাতদন্তের ঠিক আগেই জেগে উঠল সেই ‘মৃতদেহ’। নিজের ‘কীর্তি’ ধামাচাপা দিতে এর পর ওই চিকিৎসক ঘটনার সমস্ত রেকর্ড নষ্ট করে দেন ।

হাসপাতালের নিয়ম অনুযায়ী, কেউ মারা গেলে মৃতদেহ ক্যাজুয়ালটি ওয়ার্ডে দুই ঘন্টা রেখে দিতে হয়। এ প্রক্রিয়াকে মৃতদেহ শীতলীকরণ বলা হয়। ডা. রোহেকার অভিযোগ করে বলেন, হাসপাতালের কর্মচারী ও পুলিশ দেরী না করেই দেহটি মর্গে নিয়ে গিয়েছিল।

তবে এক পুলিশ কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ‘মৃতদেহ’টি সাদা কাপড়ে ঢাকা ছিল এবং ডাক্তার মৃত হিসেবে ক্যাজুয়ালটি ওয়ার্ডের নথিতে বিষয়টি রেকর্ডও করেছিলেন।

তবে, যাঁকে ঘিরে এত কাণ্ড, বছর পঁয়তাল্লিশের সেই ব্যক্তির পরিচয় এখনও জানা যায়নি । হাসপাতাল সূত্র জানিয়েছেন, ওই ব্যক্তি অপুষ্টিতে ভুগছেন । কানে সংক্রমণের কারণে আপাতত তাঁকে ইএনটি বিভাগে ভর্তি করানো রয়েছে।

সূত্র: এনডিটিভি






মন্তব্য চালু নেই