মেইন ম্যেনু

যমজ শিশু কিন্তু পিতা ভিন্ন

ভিয়েতনামে একজোড়া যমজ শিশুর মধ্যে অসামাঞ্জস্যতা দেখা দেয়ায় সন্দেহবশত তাদের ডিএনএ পরীক্ষা করা হয়। এরপর বেরিয়ে পড়ে বিস্ময়কর এক তথ্য। ডিএনএ পরীক্ষার ফলাফল মতে, ঐ দুই যমজ শিশুর পিতা ভিন্ন দুই ব্যক্তি।

ঘটনাটি ঘটেছে ভিয়েতনামের উত্তরাঞ্চলের হোয়া বিন প্রদেশে। ২ বছর বয়সি এই দুই শিশুর একজনের মাথায় ঘন ঢেউ খেলানো চুল, অন্যজনের মাথায় পাতলা সমান চুল। এখান থেকেই মূলত সন্দেহের উৎপত্তি হয়।

ভিয়েতনাম নিউজ জানিয়েছে, সন্দেহ হওয়ায় এই যমজ শিশুর বাবা এবং মা দুজনেই ডিএনএ পরীক্ষা করেন। পরীক্ষার আগে তারা ধারণা করেছিলেন, হয়তো হাসপাতালে ভুল করে তাদের যমজ একটি সন্তান রেখে, অন্য কোনো শিশুকে নিয়ে এসেছিলেন তারা।

কিন্তু হানিও জেনেটিক অ্যানালিসিস এন্ড টেকনোলজি কেন্দ্রে এই পরীক্ষা করার পর ফলাফলে দেখা যায়, এই দুই সন্তানের মা একজনই। কাজেই হাসপাতালে ভুল করে শিশুকে ফেলে আসার সন্দেহ বাদ।

কিন্তু মজার বিষয় হচ্ছে, ৩৪ বছর বয়স্ক স্বামী কেবল এক সন্তানের জনক। ফলে ডাক্তাররা একে অভিহিত করছেন বিরল ‘বাই প্যারেন্টাল’ ঘটনা বলে। এ ধরনের ঘটনা গোটা ভিয়েতনামে এই প্রথম ঘটেছে।

নিউইয়র্কের মাউন্ট সিনাই হাসপাতালের বিশেষজ্ঞ ডক্টর কেইথ এডেলম্যান সংবাদ মাধ্যম সিএনএনকে বলেছেন, দুইবার যৌন মিলনের মাধ্যমে কোনো নারীর পক্ষে একইসাথে বাই প্যারেন্টাল যমজ গর্ভধারণ করা সম্ভব। নারীদের ডিম্বাণুর জীবনকাল ১২ থেকে ৪৮ ঘণ্টা। অথচ একটি শুক্রাণুর জীবনকাল ৭ থেকে ১০ দিন। এই সময়ের মধ্যেই হয়তোবা আরেকটি ডিম্বাণু নিষিক্ত হয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই