মেইন ম্যেনু

যুক্তরাষ্ট্রে তুষারঝড়ের পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হচ্ছে

ভয়াবহ তুষারঝড় আর আকস্মিক বন্যার পর যুক্তরাষ্ট্রের পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে। বরফের আস্তরণে পঙ্গু হয়ে গিয়েছিল পূর্বাঞ্চলের বহু এলাকা। তবে কিছু এলাকায় তুষারপাত কমতে শুরু করায় লোকজন রাস্তা-ঘাট এবং বাড়ি-ঘর থেকে বরফ পরিষ্কার করতে শুরু করেছেন।

পাঁচটি অঙ্গরাজ্য প্রায় ৩ ফুট বরফের আস্তরণে ঢাকা পড়েছিল। গাড়ি, রাস্তাঘাট সব বরফে আটকে গিয়েছিল। বিভিন্ন স্থানে যানবাহন চলাচল বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছিল। এছাড়া হাজার হাজার ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে। পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হলেও সোমবার পর্যন্ত রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসিতে অবস্থিত সরকারি ভবন এবং স্কুল বন্ধ থাকবে।

শুক্রবার পূর্বাঞ্চলীয় উপকূলে তুষারপাত শুরু হয়েছিল। এরপর দেশটিতে আকস্মিক বন্যা দেখা দেয়। তুষারপাত ও বন্যার কারণে গাড়ি দুর্ঘটনা, হার্ট অ্যাটাকসহ বিভিন্ন দুর্ঘটনায় এ পর্যন্ত ২৯ জনের মৃত্যু হয়েছে।

তবে তুষারঝড়ের প্রকোপ কিছুটা কমতে শুরু করেছে। এটি ক্রমশ আটলান্টিক সাগরের দিকে ধাবিত হচ্ছে। একারণে কিছুটা স্বস্তি পেয়েছে মানুষ। আশা করা যাচ্ছে ক্রমেই পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে। তুষারঝড়ের কারণে প্রায় ৮৫ লাখ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এছাড়া প্রায় ৩ লাখ মানুষ বিদ্যুৎবিচ্ছিন্ন অবস্থায় দিন যাপন করছে। তবে রেকর্ড পরিমান তুষারপাত হয়েছে ভার্জিনিয়ার পশ্চিমাঞ্চলে। সেখানে তুষারপাতের পরিমান ছিল প্রায় ৪২ ইঞ্চি।

অপরদিকে ১৮৬৯ সালের পর দ্বিতীয়বারের মত সর্বোচ্চ তুষারপাত দেখেছে নিউইয়র্ক শহর। তুষারপাতের কারণে সেখানে সব ধরনের ভ্রমণ বাতিল ঘোষণা করা হয়েছিল। তবে পরিস্থিতি ক্রমশ স্বাভাবিক হতে শুরু করায় এখন ওই নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হয়েছে।

বিভিন্ন এলাকায় বরফ পরিস্কার করা হচ্ছে বলে রাস্তা-ঘাট বন্ধ রয়েছে। আর এই পরিস্কার কার্যক্রম চলাকালীন সময়ে সেখান থেকে নিরাপদ দূরত্বে অবস্থানের জন্য নাগরিকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন কর্মকর্তারা। শহরের সাবওয়েগুলো ইতোমধ্যেই চালু হয়েছে। তবে ভূগর্ভস্থ পরিবহন সেবা এখনও বন্ধ রয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই