মেইন ম্যেনু

যেখানে দিনে তিনবার সূর্যাস্ত, তিনবার সূর্যোদয় হয়!

নতুন আবিষ্কৃত এই গ্রহটি বৃহস্পতির তুলনায় প্রায় চার গুণ বড়। ওজনেও বৃহস্পতির চার গুণ বেশি।

একই আকাশে তিনটি সূর্য। একটি ডুবলেই আর একটির উদয় হয়। কী ভাবছেন, কল্পনা? না, ঘোর বাস্তব। পৃথিবী থেকে ৩৪০ আলোকবর্ষ দূরে এমনই এক আশ্চর্য গ্রহের সন্ধান পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা। নতুন এই গ্রহটির নাম এইচডি ১৩১৩৯৯এবি। নতুন গ্রহের আবিষ্কার অনেক হয়েছে। কিন্তু বেশ কয়েকটি অভিনব বৈশিষ্ট্যের জন্য এই গ্রহটি অন্যদের থেকে অনেকটাই আলাদা। এমনই মনে করছেন মহাকাশ বিজ্ঞানীরা।

নতুন আবিষ্কৃত এই গ্রহটি বৃহস্পতির তুলনায় প্রায় চার গুণ বড়। ওজনেও বৃহস্পতির চার গুণ বেশি। অ্যারিজোনা বিশ্ববিদ্যালয়ের যে গবেষক-দলটি এই গ্রহ আবিষ্কার করেছে, তাঁদের দাবি অনুযায়ী, এই গ্রহটির আকাশে তিনটি সূর্য রয়েছে। তিনটি সূর্য বা উজ্জ্বল তারার মধ্যে একটির আকার তুলনামূলকভাবে বড়। আর তার পিছনে গায়ে গায়ে আরও দুটি উজ্জ্বল তারা রয়েছে। এদের মধ্যে বড় তারাটিকেই গ্রহটি প্রদক্ষিণ করে। গ্রহটির কক্ষপথও অনেক দীর্ঘ এবং প্রশস্ত। সবথেকে বড় তারাটিকে অর্ধেক প্রদক্ষিণ করতেই গ্রহটির প্রায় সাড়ে পাঁচশো বছর সময় লাগে। এই সময়েই এই গ্রহের আকাশে একসঙ্গে তিনটি সূর্য দেখা যায়। অ্যারিজোনা বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে প্রকাশিত বিবৃতিতে বলা হয়েছে, এই গ্রহতে একটি ঋতু একশো বছরের বেশি সময় ধরে স্থায়ী হয়। আবার গ্রহটি নিজের কক্ষপথে প্রদক্ষিণ করার সময়ে বড় তারাটির থেকে ছোট তারা দু’টি ক্রমাগত দূরে সরতে থাকে।

গবেষক দলের অন্যতম সদস্য কেভিন ওয়্যাগনারের দাবি অনুযায়ী, প্রায় ১৪০ বছর ধরে একটানা দিনের আলো বজায় থাকে এই গ্রহে। গ্রহটির তাপমাত্রা ৫৮০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছাকাছি থাকে। কারণ, দিনে তিনবার সূর্যাস্ত এবং তিনবার সূর্যোদয় হয়। নতুন আবিষ্কৃত এই গ্রহটির বয়স ১ কোটি ৬০ লক্ষ বছর মতো। ফলে আবিষ্কৃত গ্রহগুলির মধ্যে এটিই বয়সের দিক থেকে সবচেয়ে নবীন।

চিলেতে ‘স্ফেয়ার’ নামে অত্যাধুনিক একটি টেলিস্কোপে নতুন এই গ্রহটি ধরা পড়েছে।-এবেলা






মন্তব্য চালু নেই