মেইন ম্যেনু

যেসব কারণে অজ্ঞান হতে পারেন

মস্তিষ্কে রক্তপ্রবাহের মাত্রা কমে যাওয়ার কারণে সাময়িকভাবে অচেতন হয়ে যাওয়াকে অজ্ঞান হওয়া বলা হয়। এই অচেতন অবস্থা ২ মিনিটের চেয়ে কম স্থায়ী হয় এবং আক্রান্ত ব্যক্তি দ্রুতই সুস্থ হয়ে ওঠে। চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় এই সমস্যাকে সিনকোপ বলা হয়।

এটা সেভাবে কোনো রোগ বা স্বাস্থ্য সম্পর্কিত বিপদ না হলেও কখনো কখনো এর ফলে বড় বিপদ হতে পারে। জেনে নিন ঠিক কী কী কারণে অজ্ঞান হতে পারেন আপনি।

* রক্তচাপের সমস্যা: রক্তচাপ কম থাকলে অনেক সময়ে মানুষ অজ্ঞান হয়ে যায়। এই অবস্থাকে চিকিৎসা পরিভাষায় বলে ‘হাইপোগ্লাইসেমিয়া’। কোনো একবেলা খাবার না খাওয়া বা এমন অভ্যাস করলে রক্তে শর্করার পরিমাণ কমে যায়। যার ফলে মাথা ঘুরিয়ে অজ্ঞান হওয়ার ঘটনা ঘটতে পারে।

* ক্লান্তি ও উদ্বেগ: হাইপারটেনশনের ফলে একাধিক রোগ আমাদের শরীরে বাসা বাঁধে। তাই স্ট্রেস বা উদ্বেগকে কখনো মাথায় আসতে দেবেন না।

* আবেগ: আবেগতাড়িত হওয়ার মতো অনেক ঘটনাই আমাদের জীবনে ঘটে থাকে। বিশেষ করে কোনো নিকটজন মারা গেলে অনেকেই শোকের ধাক্কা সামলাতে না পেরে জ্ঞান হারান। কারণ আবেগ অতিরিক্ত বাড়লে রক্তচাপ বাড়তে থাকে, ঘাম বেশি হয়। এবং সবশেষে জ্ঞান হারানোর ঘটনা ঘটে।

* খালি পেট: অনেক সময়ে খালি পেট থেকে মাথা ঘোরানোর অভিজ্ঞতা আমাদের সকলেরই রয়েছে। দীর্ঘক্ষণ না খেলে থাকলে জ্ঞান হারানোর মতো ঘটনাও ঘটতে পারে।

* অনিয়মিত হৃদস্পন্দন: অনিয়মিত হৃদস্পন্দনের ফলে সংজ্ঞা হারাতে পারেন আপনি। এমন অবস্থায় মস্তিষ্কে রক্ত সঞ্চালনে সমস্যা হয়। যার ফলে জ্ঞান হারাতে পারেন আপনি।

* ডিহাইড্রেশন: শরীরে পানির পরিমাণ কমে গেলে রক্তের মধ্যে জলীয় পদার্থের পরিমাণও কমে যায়। যার জেরে কমে যায় রক্তচাপ। স্নায়বিক দুর্বলতা দেখা দেয়। ফলে অজ্ঞান হওয়ার ঘটনা ঘটতে পারে।

* গর্ভাবস্থা: গর্ভাবস্থার প্রথম দিকে মাথা ঘোরানো, বমি ভাব, এমনকি অজ্ঞান হওয়ার ঘটনাও ঘটতে পারে। তাই গর্ভাবস্থার প্রথমদিকে সাবধান থাকুন।

তথ্যসূত্র: ওয়ানইন্ডিয়া






মন্তব্য চালু নেই