মেইন ম্যেনু

যে জাহাজ আইফেল টাওয়ারের থেকেও উঁচু!

টাইটানিক এর কাছে বাচ্চা। কথাটা শুনে বিশ্বাস না হলে, ছোট ছোট কতগুলি পরিসংখ্যান দেওয়া যাক। যে ক্রুজের কথা বলছি, তার ওজন প্রায় আড়াই লক্ষ টন। উচ্চতা ১১০৮ ফিট, মানে আইফেল টাওয়ারের থেকেও বেশি। জাহাজটিতে রয়েছে ১৮টি ডেক, ১৬টি রেস্তোরাঁ। রয়েছে ক্যাফে, শপিং সেন্টার ও ১৩৮০ আসন বিশিষ্ট্য থিয়েটার হল। যেখানে মিউজিক্যাল ও অ্যাক্রোবেটিকস শো উপভোগ করার ব্যবস্থা রয়েছে।

এখানেই শেষ নয়, নিউ ইয়র্কের সেন্টার পার্কের আদলে জাহাজের বিশাল জায়গা জুড়ে রয়েছে ৫২টি গাছ সমৃদ্ধ একটি বাগান, যেখানে চারাগাছ রয়েছে ১০,৫৮৭টি। এবার নিশ্চয়ই ক্রুজটির বিশাল আকার নিয়ে ধারণাটা পরিষ্কার হয়েছে। গত সপ্তাহেই রয়্যাল ক্যারিবিয়ান ইন্টারন্যাশনালের তৈরি বৃহত্তম ক্রুজ হারমোনি অব দ্য সিজ বিক্রি হল ভারতীয় মুদ্রায় ৭ হাজার ৭১০ কোটি টাকায়। এবার নিশ্চয়ই ভাবছেন, এমন একটা বিলাসবহুল সমুদ্র সফরের জন্য কত কড়ি খসাতে হবে! বেশি না, সপ্তাহে জনপ্রতি খরচ পড়বে মোটে সাড়ে সাত লাখ টাকার মতো।

মে মাসে ৬,০০০ যাত্রী নিয়ে যাত্রা করবে এই ক্রুজ। প্রত্যেক যাত্রীর হাতে পরিয়ে দেওয়া থাকবে GPS রিস্ট ট্র্যাক্যার। বিশাল ক্রুজে এই ট্র্যাকারই বিভিন্ন দিকে যেতে সাহায্য করবে যাত্রীদের। টাইটানিকের উচ্চতা ছিল ৮৮৫ ফিট। আর যাত্রীবহন ক্ষমতা ২,৪০০০। টাইটানিকের এই সিকোয়েল হারমোনির পরিণতি যেন টাইটানিকের মতো না হয়, সেই প্রার্থনাই রইল।






মন্তব্য চালু নেই