মেইন ম্যেনু

যে দুঃখ সারা জীবনই থাকবে মাশরাফির

বাংলাদেশ ২০১১ সালে হয়েছিল বিশ্বকাপের সহআয়োজক। দেশের মাটিতে বিশ্বকাপ, সব ক্রিকেটারের মাঝেই আগ্রহও ছির ঠিক অন্যরকম। কিন্তু একজনের সাথে ভাগ্য করলো নির্মম খেলা। হাটুর ইনজুরি থেকে ফিরে এসে বিশ্বকাপের দলে জায়গা পাওয়ার জন্য করেছিলেন অমানুষিক পরিশ্রম। কিন্তু শতভাগ ফিট না হওয়ায় মন গলেনি নির্বাচকদের। দল ঘোষণার পর অশ্রুসিক্ত হন বাদ পড়া মাশরাফি বিন মুর্তজা।

তবে এর ৪ বছর পর ২০১৫ সালের বিশ্বকাপেই অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডের মাটিতে দেশকে নেতৃত্ব দিলেও সেই কষ্ট এখনো ভোলেননি মাশরাফি। এ ব্যাপারে দেশের অন্যতম একটি জাতীয় দৈনিককে দেওয়া সাক্ষাৎকারে মাশরাফি বলেছেন, ‘ওই বিশ্বকাপ না খেলার দুঃখ তো সারা জীবনই থাকবে। তাই বলে সেটি আঁকড়ে থাকারও কিছু নেই।’

টাইগার অধিনায়ক ২০১৫ বিশ্বকাপ নিয়ে আরো বলেন, ‘আমরা সবাই প্রতিটি ম্যাচ, প্রতিটি মুহূর্ত উপভোগ করতে চেয়েছি। দলের প্রথম মিটিংয়েই সেটি সবাইকে বলেছিলাম। সবাই যেন একসঙ্গে থাকি, একসঙ্গে ঘোরাঘুরি করি, একসঙ্গে খাওয়া-দাওয়া করি। যে কারণে বাড়ির কথা সেভাবে মনে পড়েনি।

তিনি বলেন, বিশ্বাস করবেন কিনা জানি না, ক্যারিয়ারে এই প্রথম বিদেশ থেকে দেশে ফেরার সময় আমার মন খারাপ হয়েছে। আগে সব সময় খালি মনে হতো কবে বাড়ি ফিরব। এবার মনে হয়েছে ইস, যদি ফাইনাল পর্যন্ত থাকতে পারতাম, এমনই অনুভূতি প্রকাশ করেন মাশরাফি!’






মন্তব্য চালু নেই