মেইন ম্যেনু

যে ফল গুলো ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়

এই পৃথিবীর সবচেয়ে বড় খুনি হচ্ছে ক্যান্সার। ক্যান্সারের চিকিৎসার ধাপ গুলো হয় সার্জারি, কেমোথেরাপি ও রেডিওথেরাপি। এই চিকিৎসাগুলো বেশ ঝুঁকিপূর্ণ এবং অপ্রত্যাশিত পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করে। ক্যান্সারের ঝুঁকি হ্রাস করার জন্য কিছু প্রাকৃতিক উপায় আছে। এই উপায়গুলোর একটি হচ্ছে নির্দিষ্ট কিছু ফল ভক্ষণ করা। প্রধান যে ফল গুলো ক্যান্সারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করার জন্য সাহায্য করে সেগুলো হল :

১। লেবু

ক্যান্সারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করার ফলের তালিকায় প্রথমেই আসে লেবুর নাম। কারণ এটি ভিটামিন সি সমৃদ্ধ, সাইট্রিক এসিড সমৃদ্ধ, এতে আছে উচ্চমাত্রার এন্থোসায়ানিন, অ্যান্টিওক্সিডেন্ট এবং অন্য সক্রিয় উপাদান। নিয়মিত লেবু খেলে ক্যান্সারের ঝুঁকি ৫২ % পর্যন্ত কমে। সাধারণত ভাত খাওয়ার সময় লেবু খাওয়া হয়। পানির সাথে লেবুর রস মিশিয়েও পান করতে পারেন।

২। কলা ও জাম্বুরা

গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে যে, নিয়মিত কলা ও জাম্বুরা খেলে ক্যান্সারের ঝুঁকি হ্রাসপায় ১০%। এর কারণ উভয় ফলেই উচ্চমাত্রার ভিটামিন সি আছে। ভিটামিন সি শক্তিশালী অ্যান্টিওক্সিডেন্ট যা কোষের অক্সিডেটিভ স্ট্রেস কমাতে পারে এবং কোষের DNA এর পরিবর্তনকে প্রতিরোধ করে যা ক্যান্সার সৃষ্টির জন্য দায়ী। উভয় ফলেই উচ্চমাত্রার ফাইবার থাকে যা কোলন ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে পারে। একটি জাম্বুরার অর্ধেক সকালের নাস্তার পরে খেতে পারেন। কলা তো যে কোন সময়েই খাওয়া যায়।

৩। আপেল, লাল আঙ্গুর ও স্ট্রবেরি

নিয়মিত আপেল, আঙ্গুর ও স্ট্রবেরি খেলে ক্যান্সারের ঝুঁকি ৪০% পর্যন্ত কমে যায়। কারণ এই ফলগুলোতে এন্থোসায়ানিনের উপস্থিতি। এই উপাদানটিই এই ফল গুলোকে লাল বর্ণের করে এবং ক্যান্সারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করার ও উপাদান আছে এতে। লাল আঙ্গুরে রেসভারেট্রল নামক উপাদান থাকে যার অ্যান্টিকার্সিনোজেন ক্ষমতা আছে। এতে উচ্চমাত্রার ফাইবারও থাকে। ওটমিলের সাথে আপেল মিশিয়ে খেতে পারেন, দুপুরের লাঞ্চে অথবা রাতের খাবারের সাথে স্ট্রবেরি ও লাল আঙ্গুর খেতে পারেন।

এই ফলগুলো শুধু সুস্বাদুই নয় ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতেও অনেক উপকারি এবং সার্বিক স্বাস্থ্যের ও উন্নতি ঘটায়। তাই প্রতিদিন বেশি পরিমাণে এই ফল গুলো খান ও ক্যান্সারের ঝুঁকি কমান।






মন্তব্য চালু নেই