মেইন ম্যেনু

যে সব প্রশ্ন করবেন না ভালবাসার মানুষকে

ভালোবাসার সম্পর্ক যত গভীর হতে থাকে ততই কমতে থাকে প্রশ্নের সংখ্যা। কারণ একটি ম্যচিউরড সম্পর্কে দুজন দুজনকে প্রশ্ন করার আগেই পেয়ে যান বেশিরভাগ উত্তর। তারপরও অনেক প্রশ্ন মাথায় ঘুরতে থাকে। কিন্তু এতো কথা ও প্রশ্নের ভিড়ে সঙ্গীকে কিছু ধরনের প্রশ্ন একেবারেই করা উচিত নয়। বিশেষ করে ভালোবাসা যখন অনেক গভীর। কারণ এই প্রশ্নগুলো অবিশ্বাস ও দ্বিধা প্রকাশ করে। তাই বিরত থাকুন এই ধরণের প্রশ্ন করা থেকে।

১) তুমি কি আমাকে ভালোবাসো?

মনের ভেতর শত কৌতূহল বাসা বাঁধলেও এই প্রশ্নটি সঙ্গীকে করতে যাবেন না। কারণ সঙ্গী মনে করবেন আপনি তার ভালোবাসা নিয়ে দ্বিধায় আছেন ও বিশ্বাস করতে পারছেন না।

২) আমি তোমাকে খুশি রাখতে পারছি?

এই প্রশ্নতে আপনি নিজের উপরেই দ্বিধা নিয়ে আসছেন। আপনি যখন এই প্রশ্নটি তার সামনে রাখছেন তখন তিনি মনে মনে কিছু হলেও ভাববেন আপনার ভালোবাসা নিয়ে। তাকে এই সুযোগ দেবেন না।

৩) তোমার কি মনে হয় আমাদের সম্পর্কের ভবিষ্যত আছে?

এই প্রশ্নটি করে সঙ্গীর মন ভেঙ্গে দেয়া একেবারেই উচিত নয়। যদি আপনাদের সম্পর্কের ভবিষ্যত থাকে তাহলে তা আপনি নিজেই বুঝতে পারবেন। প্রশ্ন করে মনে করিয়ে দেয়ার প্রয়োজন নেই।

৪) তুমি কি আমার অতীত নিয়ে চিন্তিত?

মানুষের অতীত ভাল না-ও হতে পারে। তাই অতীত নিয়ে প্রশ্ন করে ভালবাসার মানুষটিকে চিন্তায় ফেলে দিচ্ছেন। কেন সম্পর্কে অযথা ঝামেলা তৈরি করবেন!

৫) তোমার কি মনে হয় আমি তোমার জন্য পারফেক্ট?

এই প্রশ্ন করলে আপনার সঙ্গী মনে মনে ভাববেন আপনি মনে হয় তার যোগ্যতা নিয়ে বেশ চিন্তিত, যার কারণে আপনার মনে এই ধরনের প্রশ্ন আসছে। তাই এই প্রশ্নটি করবেন না শত কৌতূহল থাকলেও।

৬) আমি কি সুন্দর তোমার চোখে?

এই প্রশ্নটি বেশ বিরক্তিকর। আপনি সুন্দর বা অসুন্দর কিনা তা ভালোবাসা বিবেচনা করে না। ভালোবাসা সুন্দর অসুন্দর দিয়ে হয় না যদি তা সত্যিকারের ভালোবাসা হয়ে থাকে। এই প্রশ্ন করে সঙ্গীর কাছে নিজেকে ছোটো করতে যাবেন না।

৭) তুমি কি পরেও আমাকে এভাবেই ভালোবাসবে?

ভালোবাসা পরিবর্তনশীল। সময় এবং পরিস্থিতির সাথে এটি বদলায়। কিন্তু এই প্রশ্নটি করে বর্তমানের সময় এবং পরস্থিতিকে প্রশ্নবিদ্ধ করার কোনো প্রয়োজন নেই। দয়া করে সঙ্গীকে এই প্রশ্ন করবেন না। সঙ্গী ভাবতে পারেন আপনি তাকে নিয়ে সন্দিহান এবং তার উপর আপনার ভরসা নেই।






মন্তব্য চালু নেই