মেইন ম্যেনু

যে সাগরে মানুষ ডুবে না, আবার কোনো প্রাণীও বাঁচে না

মহান আল্লাহ তায়ালা পৃথিবীতে এমন কিছু দৃষ্টান্ত রেখেছেন যা থেকে বান্দারা শিক্ষাগ্রহণ করতে পারেন। তেমনই এক দৃষ্টান্ত একটি সাগর। যে সাগরে মানুষ ইচ্ছে করলেও ডুবতে পারে না, আবার কোন ধরণের প্রাণী বাঁচে না।

আজব এই সাগরটি আজ থেকে ৩১০০ বছর পূর্বে বর্তমান জর্দান ও ইসরাইলের মধ্যবর্তী স্থানে অবস্থিত ডেড সী বা মৃত সাগরের স্থানটিতেই ছিল সামূদ গোত্রের আবাসস্থল “সদম ও গোমরা” নগর। এই নগরের অধিবাসীরা ব্যাপক অনৈতিক কাজে জড়িয়ে পড়লে মহান আল্লাহ তাদের সংশোধনের জন্য লুত (আ.) কে নবী হিসেবে পাঠান।

কিন্তু ঐ জাতি লুত (আ.) এর আহবানে সাড়া না দিয়ে নিকৃষ্ট কু-কর্ম চালিয়ে যায়। মহান আল্লাহ তাদের উপড় আসমান থেকে অগ্নী কুন্ড নিক্ষেপ করেন এবং তাদের নগরকে উল্টিয়ে ধ্বংস করে দেন।

এ সাগরে আজও পর্যন্ত কোন মাছ বা জলজ প্রাণী বাঁচতে পারেনা। পৃথিবীর সকল খাল, বিল, পুকুর, নদী, সাগরের পানিতে মানুষ সহজে ডুবে গেলেও ডেড সির পানিতে কোন মানুষ চাইলেও ডুবতে পারেনা। পৃথিবীর মানুষের জন্য নিদর্শন হিসেবে আল্লাহ তায়ালা আজও রেখে দিয়েছেন এই ডেড সী বা মৃত সাগর।

সুরা আরাফের ৮০, ৮১ ও ৮২ নং আয়াতে বলা হয়েছে:
“এবং আমি লুতকে প্রেরণ করেছি। যখন সে স্বীয় সম্প্রদায়কে বলল, তোমরা কি এমন কোন অশ্লীল কাজ করছ, যা তোমাদের আগে সারা বিশ্বের কেউ করেনি? তোমরা নারীদের ছেড়ে পুরুষদের কাছে গমণ কর। বরং তোমরা সীমা লঙ্ঘন করেছো। (তখন তারা লুতকে দেখিয়ে, তাচ্ছিল্য করে বলল) এরা নিজেদের বড় পবিএ ও পরিছন্ন বলে দাবী করে। এদের চিকিৎসা এই যে, এদেরকে ঘড় থেকে বের করে দাও।”

তখন পরিস্থিতি এমন দাড়িয়ে ছিল যে লুত (আ.) ও তার ২টি কন্যা ছাড়া কেউ মুসলমান ছিল না। অবশেষে আল্লাহ তাদের উপর গজব নাজিল করেন।

সুরা হুদে ৮২ নং আয়াতে বলা হয়েছে:
“যখন আমার আযাব এসে গেল, তখন আমি শহরটিকে উল্টে দিলাম ও তাদের উপর স্তরে স্তরে প্রস্তর বর্ষণ করলাম যা আপনার প্রতিপালকের কাছে চিহ্নযুক্ত ছিল।”

এই পাপাচার যে কতটা জঘণ্য এবং পরকালীন জীবনে এর শাস্তি যে কতটা ভয়ংকর হবে তা দুনিয়ার জীবনে পূর্ববর্তীদের উপর আল্লাহ তায়ালার ফয়সালা থেকে সহজেই অনুমান করা যায়। এ ধরনের জঘন্য কর্ম হতে পরিবার, সমাজ তথা পুরো জাতিকে মুক্ত রাখতে আমাদের উচিৎ এখনই সর্বাত্মক পদক্ষেপ নেয়া।






মন্তব্য চালু নেই