মেইন ম্যেনু

যে ৪ টি ভুল কারণে বিয়ে করে ঝামেলায় পড়েন অনেকেই!

মানুষ বিয়ে কেন করে এই প্রশ্নের উত্তরে অনেকেই বলবেন, বিয়ে সামাজিক বন্ধন, সমাজের মানুষের অনেক কিছু মেনে চলতে হয় ইত্যাদি’, আবার কেউ কেউ বলবেন ‘নিজের একাকী সময়ে কাউকে পাশে লাগে বা বংশ রক্ষা ধরণের কথা’। সত্যি বলতে কি বিয়ে করার জন্য এই কারণগুলো একেবারেই প্রযোজ্য নয়। বরং এই সকল কারণে বিয়ে করে মানুষ বেশ বিপদেই পড়ে যান। শুধু একলা নয় যাকে বিয়ে করছেন তিনি সহ অযথা ঝামেলায় জড়িয়ে যান এইধরনের অদ্ভুত কারণগুলোর জন্য।

১) পরিবার চাচ্ছেন সে কারণে বিয়ে করা
প্রায় ৫০%-৬০% মানুষ বিয়ে করার কারণ হিসেবে পরিবার ও আত্মীয় স্বজনের চাপটাকে তুলে ধরেন। অনেকেই শুধুমাত্র চাপের মুখে পড়েই বিয়ে করেন যার বেশিরভাগই নারী। আর এই চাপের মুখে বিয়ে করে সংসারে গিয়ে যখন তাল মেলাতে পারেন না তখন অনেক সময়েই বিয়ের ফলাফল ভালো দাঁড়ায় না। চাপে পড়ে বিয়ে করে আসলে সম্পর্ক এগিয়ে নিয়ে যাওয়া খুবই কষ্টকর। অনেকেই অভিনয় করেই জীবন পার করে দেন। আর যারা পারেন না তাদের ছাড়াছাড়িই হয়ে যায় শেষ পর্যন্ত।

২) বন্ধু বান্ধবেরা করে ফেলেছে, মানুষ কি বলবে ভেবে বিয়ে করা
বিয়ে করার আরেকটি বড় কারণ হিসেবে মানুষ বলেন ‘বয়স হয়ে যাচ্ছে, বন্ধুবান্ধবেরা সকলেই বিয়ে করে ফেলেছে তো লোকে কি বলবে’। কিন্তু আপনি নিজেই একটিবার ভাবুন তো এটি কি বিয়ে করার সঠিক কারণ হতে পারে? মোটেই নয়। আপনি কি অন্যের কথায় খাবার খান? তা তো নয়, তাহলে বিয়ের ব্যাপারে কেন অন্যের কথা শুনছেন? অন্যের কথা শুনে সংসারের দায়িত্ব ঘাড়ে নিয়ে ধুঁকে জীবন পার করতে অনেকেরই আফসোসের সীমা থাকে না। তাই নিজের দিকটা দেখুন। নিজের কথা ভাবুন, তারপর বিয়ে করুন।

৩) নিজেকে অনেক বেশি একাকী লাগে সে কারণে বিয়ে
কিছু ধরণের মানুষ তখনই বিয়ে করার জন্য উতলা হয়ে উঠে যখন তিনি ভাবেন সে অনেক বেশি একা এবং হয়তো জীবনে একাই থেকে যাবেন। এই ধরণের চিন্তা করে বিয়ে করে ফেলে কিন্তু পস্তানোর সম্ভাবনা অনেক বেশি। পরবর্তীতে যখন সংসার জীবনে পা দেয়া হয় তখন নিজের একাকী জীবনটাকে বেশিই মনে করে সংসারে ঝামেলা তৈরি শুরু করে দেন। সুতরাং এই চিন্তাও কিন্তু বিয়ের জন্য ঠিক নয়।

৪) শুধুমাত্র বংশ রক্ষা হবে ভেবে বিয়ে করা
সন্তানের চাহিদা এবং বংশ রক্ষার একটি ঐতিহ্যবাহী ধারা চলে আসছে অনেককাল ধরেই প্রায় প্রতিটি ঘরে। মানুষ কেন বিয়ে করে? সন্তানের জন্য, নিজের বংশের চেরাগের জন্য। কিন্তু এই চিন্তা করে বিয়ে করলেই কি চলবে? সন্তান পালনের চিন্তা করতে হবে না? যদি সন্তান পালনের ক্ষমতা এবং মানসিকতা গড়েই না উঠে তাহলে বিয়ে করে সন্তান নিয়ে তাকে আর মানুষ করা হয়ে উঠবে না। সুতরাং এই ভুল কাজটি করবেন না।

অনেকের মনেই প্রশ্ন জাগতে পারে ‘তাহলে বিয়ে করার সঠিক কারণ কোনটি?’। বিয়ে করার নির্দিষ্ট কোনো কারণ নেই। তবে যদি কিছুটা নির্দিষ্ট করে বলা যায়, তাহলে বলতে হয়, ‘যখন আপনার মনে হবে জীবনে কারো প্রয়োজন রয়েছে শুধু একাকী দূর করার জন্য নয় সুখ-দুঃখ ভাগ করে নেয়ার জন্য, একটি পরিবার থাকার প্রয়োজন আছে এবং সেই পরিবারের মূল্য বুঝে পুরো পরিবারের দায়িত্ব নেয়ার মানসিকতা আছে, নিজেকে একজন দায়িত্ব সম্পন্ন পিতা/মাতা হিসেবে দেখতে চান আপনি নিজে, অন্য কারো চাপে পড়ে নয়’ তখনই বিয়ের প্রস্তুতি নিতে শুরু করা উচিত।

সূত্রঃ elitedaily.com






মন্তব্য চালু নেই