মেইন ম্যেনু

যে ৬ টি খাবার দায়ী আপনার পেটের সমস্যার জন্য!

পেট ভরানোর জন্য আপনি যে খাবারটি খাচ্ছেন সেই খাবারটিই আপনার পাকস্থলির বারোটা বাজিয়ে দিচ্ছে। বিভিন্ন রকম অসুস্থতার উদ্রেক করছে শরীরে। দেখুন তো এর মাঝে আপনার প্রিয় খাবারটিও আছে কিনা?

নিজের অজান্তেই এমন সব খাবার আমরা খেয়ে থাকি যা আমাদের পেট খারাপ করে দেয়, বম-বমি ভাব, পেট ব্যাথা বা আমাশার মতো সমস্যা সৃষ্টি করে।

১) নিত্যদিনের পেঁয়াজ-রসুন

এদেশে পেঁয়াজ-রসুন ছাড়া রান্নার কথা তো ভাবাই যায় না! অথচ পেঁয়াজ-রসুনে থাকা FODMAP নামের এক ধরণের কার্বোহাইড্রেটের কারণে আপনার পেটে সমস্যা হতে পারে। এই সমস্যা কতোজনের আছে তা বলা যায় না। তবে যাদের ইরিটেবল বাওয়েল সিনড্রোম বা আইবিএস সমস্যাটি আছে, তারা এই সমস্যার মূল ভুক্তভোগী। আমাদের পেটের ব্যাকটেরিয়াগুলো এই FODMAP কে ফারমেন্ট করে গ্যাস তৈরি করে যাতে পেট ফেঁপে যায়, বমি বমি ভাব এবং পেট ব্যাথা হয়।

এ সমস্যার সমাধান কী? পেঁয়াজ-রসুন খাওয়া বন্ধ করে দিতে হবে? না, এর জন্য একটা কৌশল খাটাতে পারেন। তেলে পেঁয়াজ-রসুন ভেজে নিতে পারেন। এরপর শুধু তেলটুকু ছেঁকে নিয়ে রান্না করতে পারেন। তাহলে খাবারের স্বাদ-গন্ধও অটুট থাকবে, পেটও থাকবে ভালো

২) আইসক্রিম এবং পনির

এই দুটি খাবারে থাকে প্রচুর মিল্ক ফ্যাট। এতেও পেটের ব্যাকটেরিয়া বেশ লাই পেয়ে যায়। তবে ব্যাকটেরিয়া খাবারের এই ফ্যাট খাওয়ার মাধ্যমে ক্ষতি করে না। বরং এই ফ্যাট হজমের জন্য যে পাচক রস বের হয় পাকস্থলী থেকে, সেই রস খেতে আসে এসব ব্যাকটেরিয়া। পেটে এসব ব্যাকটেরিয়ার সংখ্যা বেড়ে অস্বস্তি হতে থাকে আমাদের। এ সমস্যা থেকে রেহাই পেতে কমিয়ে দিন স্যাচুরেটেড ফ্যাট-সমৃদ্ধ খাবার খাওয়ার প্রবণতা।

৩) চিনির বদলে কৃত্রিম চিনি

আর্টিফিশিয়াল সুইটনার ব্যবহার করাটাকে স্বাস্থ্যকর মনে করেন অনেকে। কিন্তু সুইটনার খাওয়ার ফলে অন্ত্রে পানি জমা হয়ে তৈরি করতে পারে ডায়রিয়ার মতো উপসর্গ। এ ছাড়াও সুইটনার জিনিসটা থেকে কোনো পুষ্টি আসে না বলে শরীর একে হজম করতে পারে না, দেখা দেয় বদহজম। যারা চা-কফি জাতীয় খাবার মিষ্টি ছাড়া খেতে পারেন না, তারা দরকার হলে অল্প একটু চিনিই মিশিয়ে নিন সুইটনারের পরিবর্তে।

৪) ডাল এবং সীম

ডাল এবং সীম দিয়ে রান্না করা তরকারি খাবার পর বেদম ফেঁপে যায় অনেকের পেট। দৈনিক ডাল খাবার পর অ্যাসিডিটি হয়, এমন মানুষও কম নয়। এর পেছনেও দায়ী হতে পারে এক ধরণের FODMAP। এ সমস্যার সমাধান করতে পরিষ্কার পানিতে সারারাত ভিজিয়ে রাখুন ডাল অথবা সীম। এরপর পানি ফেলে দিয়ে ধুয়ে রান্না করুন। এতে অনেকটা উপকার পাবেন।



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই