মেইন ম্যেনু

যে ৮টি কারণে নারকেল তেল বেশি করে ব্যবহার করবেন

সুন্দর ঘন চুলের জন্য নারকেল তেল ব্যবহারের কথা জনে না এমন বাঙালি পাওয়া সত্যিই কঠিন৷ তবে এই তেল যে জীবাণু ধ্বংস করে, ত্বকের নানা রোগ সারায় কিংবা মশার কামড়কে দূরে রাখে তা জনেন কি?

নারকেলে তেলে রয়েছে লাউরিক অ্যাসিড, যা ব্যাকটেরিয়া ও ভাইরাস প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে৷ কারণ এই ফ্যাটি অ্যাসিড এবং আদ্রতা মিশে যা তৈরি হয়, তা মুখের শুষ্ক ত্বকের জন্য খুবই উপকারী৷ তাই এটি বলিরেখা দূর করতে সাহায্য করে৷ এ কথা জানান জার্মান ত্বক বিশেষজ্ঞ ডা. হান্স-গিয়র্গ ডাওয়ার৷

নারকেলের শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার : শুষ্ক ও ভেঙে যাওয়া অসুস্থ চুলে নারকেলের শ্যাম্পু খুবই উপকারী৷ কারণ নারকেলের ফ্যাটি অ্যাসিড চুলের গোড়ার ত্বকে মিশে চুলকে মসৃণ করে৷ তাছাড়া নারকেল দেয়া কন্ডিশনার ব্যবহার করলেও চুল চকচকে ও মসৃণ হয়৷

মশার কামড় থেকে বাঁচতে : নারকেল তেল বা নারকেলের তৈরি যে কোনো কিছুর সুবাস বা ঘ্রাণ আমাদের ভালো লাগলেও, মশার নারকেলের গন্ধ নাকি মোটেই পছন্দ নয়৷ তাই সন্ধ্যায় বাইরে বসার আগে শরীরে, হাতে-মুখে এই তেল মেখে নিন৷ দেখবেন তেলের গন্ধে মশা কেমন পালিয়ে যাবে আর সন্ধ্যা হয়ে উঠবে আরো আনন্দময়৷

সূর্যস্নানের পর নারকেল তেল : সূর্যস্নান বা অনেকক্ষণ রোদে থাকার পর ত্বক যদি খানিকটা চুলকায় বা টান-টান লাগে, তখন নারকেল তেল মুখে এবং গায়ে মাখলে আরাম হয় এবং ত্বকও ভালো থাকে৷ তবে সুপার মার্কেট থেকে কেনা যে কোনো নারকেল তেল নয়, অরগ্যানিকভাবে তৈরি নারকেল তেলই এক্ষেত্রে স্রেয়৷

আফটার শেভ লোশনের বিকল্প : নারকেলে তেলে রয়েছে এক ধরনের অ্যান্টিসেপ্টিক, আর সে কারণেই দাড়ি কাটার পর তা আফটার শেভ লোশনের বিকল্প হিসেবে ব্যবহার করা যায়৷ এই তেল শেভ করার পর ত্বককে শান্ত রাখে এবং শেভ করতে গিয়ে কোথাও কেটে গেলে, তা তাড়াতাড়ি ঠিক হয়ে যায়৷

খুসকিতে নারকেল তেল : মাথায় খুসকি হলে বা মাথার ত্বক চুলকালে এক চা চামচ নারকেল তেল কিছুক্ষণ ভালোভাবে ঘষে ১০ মিনিট রেখে চুল ধুয়ে ফেলুল৷ এতে চুলকানো কমবে, দূর হবে খুসকিও৷ তবে তেলটা অরগ্যানিক হতে হবে৷ এছাড়া সুন্দর, ঝরঝরে ও মসৃণ চুলের জন্য গোসলের ঘণ্টাখানেক আগে পুরো মাথায় ভালো করে তেল মেখে নিন৷ গোসলের পর দেখুন কেমন দেখায়!

নারকেলের তৈরি প্রসাধনসামগ্রী : বর্তমানে নারকেলের তৈরি ক্রিম, শ্যাম্পু, কন্ডিশনার ও তেলের মতো প্রসাধন সামগ্রীর ব্যবহার দিন দিন বাড়ছে৷ আজকাল ফার্মেসিগুলোতে অরগ্যানিক নারকেল তেলও পাওয়া যায়, যা অনেকেই মুখসহ সারা গায়ে ব্যবহার করেন৷ তাছাড়া অরগ্যানিক তেল কয়েক মিনিট দাঁতে ঘষলে দাঁতগুলোও কিন্তু খুব সুন্দর ঝকঝক করে ওঠে।

রান্নায় নারকেল তেল : বাঙালি রান্নায় নারকেল তেল ব্যবহারের তেমন প্রচলন না থাকলেও, এই তেল ব্যবহারের নানা গুণ রয়েছে৷ নারকেল তেলের প্রায় ৯০ শতাংশই স্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড, যা শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে শক্তিশালী করে, হজম শক্তি বাড়ায় এবং আলৎসহাইমারের মতো অসুখকে দূরে রাখতে সাহায্য করে৷-ডিডব্লিউ






মন্তব্য চালু নেই