মেইন ম্যেনু

রাজধানী ছাড়তে শুরু করেছে ঘরমুখো মানুষ

স্বজনদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে ঢাকা ছেড়ে গ্রামের বাড়ি ফিরতে শুরু করেছেন রাজধানীবাসী। কমলাপুর রেল স্টেশনে অন্যদিনের তুলনায় অগ্রিম টিকিটের মাধ্যমে বাড়ি ফেরা যাত্রীদের আজ (বুধবার) উপচে পড়া ভিড়। ঈদ উপলক্ষে গত ২৯ আগস্ট থেকে ঘরমুখো যাত্রীদের জন্য অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হয়। সেই দিনই দেওয়া হয়েছিল আজকে (৭ সেপ্টেম্বর) ট্রেনের টিকিট। তবে নাড়ির টানে ঘরে ফেরা মানুষের আসল যুদ্ধ শুরু হবে আগামী শুক্রবার থেকে। কারণ ওই দিন থেকে শুরু হচ্ছে ঈদুল আজহার সরকারি ছুটি।

আজ (বুধবার) রংপুর এক্সপ্রেসে পরিবার-পরিজন নিয়ে বাড়ি যাচ্ছেন আরিফুল ইসলাম। তিনি বলেন, ঈদের সময় বাড়ি ফেরা খুবই ভোগান্তির। যে কারণে একটু আগেই যাওয়ার চেষ্টা করছি। এছাড়া বাড়ি গিয়ে কুরবানির গরু কিনতে হবে।

আরিফুল আরো বলেন, ঈদে বাড়ি ফিরতে অনেক বিড়ম্বনা পোহাতে হলেও নাড়ির টানে বাড়ির পানে ফিরে মানুষ। কারণ ঈদে বাড়ি ফেরার মধ্যে আলাদা ভালো লাগা আছে। বিষয়টা এমন যে প্রিয়জনদের সঙ্গে ঈদ আনন্দ ভাগাভাগির জন্য এ ঘরে ফেরা।

এক হাতে শিশু সন্তান আবিরের হাত অন্য হাতে বড় একটা ল্যাগেজ নিয়ে কমলাপুর রেল স্টেশনের ৩নং প্লাটফর্মে অগ্নিবীণা ট্রেনের জন্য অপেক্ষা করছিলেন বেসরকারি চাকরিজীবী হায়দার হোসেন। তিনি বলেন, ঈদে বাড়ি ফেরা একদিকে যেমন খুবই আনন্দের অন্যদিকে অনেক ভোগান্তির। এই ভোগান্তির কথা মাথায় রেখে ছুটি ম্যানেজ করে একটু আগেই বাড়ি ফিরছি। সড়ক পথে যানজট ও পরিবহন সংকটের ভোগান্তির কারণে বাড়ি ফেরার জন্য ট্রেন যাত্রা বেছে নিয়েছি।

রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ বলছে, যাত্রীরা যেমন সুন্দর এবং সুশৃংঙ্খলিত ভাবে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট কাটতে পেরেছেন আশা করা যায় সবার ঈদ যাত্রাও সুন্দর হবে। ট্রেনে যাত্রীদের যেন কোনো সমস্যা না হয় এবং সকল বিষয়ে নিরাপত্তা ব্যবস্থা ঠিক রাখতে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে।

উল্লেখ্য, আগামী রোববার (১১ সেপ্টেম্বর) নির্বাহী আদেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছুটি ঘোষণা করেছেন। ফলে শুক্রবার (৯ সেপ্টেম্বর) থেকে ছুটির ফাঁদে পরছে রাজধানী ঢাকা। তবে ১১ সেপ্টম্বরের পরিবর্তে আগামী ২৪ সেপ্টেম্বর (শনিবার) অফিস করতে হবে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের।






মন্তব্য চালু নেই