মেইন ম্যেনু

রাজনের মৃত্যুতে মুশফিকের প্রতিবাদ

সিলেট জেলার কুমারগাঁওয়ের শিশু শেখ সামিউল আলম রাজনে মৃত্যুর প্রতিবাদ জানিয়েছেন জাতীয় দলের ক্রিকেটার মুশফিকুর রহিম।

সোমবার মুশফিক তার অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে এই প্রতিবাদ জানান। তিনি ফেসবুকে লিখেছেন, ‘There can never be a worse crime than abusing an innocent child to death. Say no to child abuse! (একটি নিষ্পাপ শিশুকে নির্যাতন করে মেরে ফেলার মতো বড় অপরাধ মনে হয় আর নেই। শিশু নির্যাতনকে না বলুন!)

এদিকে এই হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার প্রধান আসামি মুহিত আলমকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে পাঠিয়েছে আদালত। এ মামলায় অপর এক আসামিকে সিলেট থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সোমবার সকালে রিমান্ড আবেদনের ওপর শুনানি শেষে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দ্বিতীয় আদালতের বিচারক ফারহানা ইয়াসমিন মামলার শুনানি শেষে এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

গত বুধবার সকাল সাতটার দিকে আসামিরা চুরির অভিযোগে শিশু রাজনকে খুঁটিতে বেঁধে লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করে। ময়নাতদন্তের পর রাজনের দেহে ৬৪টি আঘাত পাওয়া গেছে। আজ সোমবার দুপুরে পুলিশের হাতে ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পৌঁছায়। প্রতিবেদনে উল্লেখ আছে, আঘাতের কারণে মস্তিষ্কের রক্তক্ষরণে রাজনের মৃত্যু হয়েছে।

৮ জুলাই বুধবার সকাল সাতটার দিকে সিলেট-সুনামগঞ্জ রোডের কুমারগাঁও বাসস্টেশন এলাকার বড়গাঁওস্থ সুন্দর আলী মার্কেটের একটি ওয়ার্কশপের সামনে রাজনের ওপর অত্যাচার চালানো হয়। এই দৃশ্য মোবাইল ফোনে ভিডিও করে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে প্রচার করা হয়।

এরপর বেলা পৌনে ১টার দিকে হত্যার পর মাইক্রোবাস যোগে (ঢাকা মেট্টো-চ-৫৪-০৫১৬) রাজনের মরদেহ গুমের চেষ্টার সময় মুহিত আলম নামের একজনকে আটক করে জালালাবাদ থানার পুলিশ। আটকের পর পুলিশের কাছে ১৬১ ধারায় জবানবন্দিতে রাজন হত্যার রোমহর্ষক বর্ণনা দেন তিনি।নিহত রাজন কুমারগাঁও বাসস্টেশন সংলগ্ন সিলেট সদর উপজেলার কান্দিগাঁও ইউনিয়নের বাদে আলী গ্রামের মাইক্রোবাস চালক শেখ আজিজুর রহমানের ছেলে।






মন্তব্য চালু নেই