মেইন ম্যেনু

রাজন হত্যা : কামরুলকে আনতে সৌদি যাচ্ছে পুলিশ

শিশু সামিউল আলম রাজন হত্যা মামলার প্রধান আসামি কামরুল ইসলামকে ফিরিয়ে আনা হচ্ছে। তাকে আনতে ১২ অক্টোবর সৌদি আরব যাচ্ছেন বাংলাদেশ পুলিশের তিন কর্মকর্তা।

বাংলাদেশ পুলিশের এআইজি (মিডিয়া এ্যান্ড পিআর) মো. নজরুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে বুধবার বিকেলে এ তথ্য জানান হয়।

আসামি কামরুলকে আনার জন্য বিদেশে যাচ্ছেন পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহাবুবুল করিম, সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার মোহাম্মদ রহমত উল্লাহ ও সহকারী পুলিশ কমিশনার এ এফ এফ নেজাম উদ্দিন।

এর আগে পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের অনুরোধে মঙ্গলবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করে।

এ প্রসঙ্গে এক প্রতিক্রিয়ায় বাংলাদেশ পুলিশের ইন্সপেক্টর জেনারেল (আইজিপি) এ কে এম শহীদুল হক বলেন, ‘শিশু রাজন হত্যা মামলায় ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠার জন্য আমরা তৎপর। নানা নিয়মনীতি মেনে এ আসামিকে নিয়ে আসতে পারা আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় আমাদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টারই অংশ।’

গত ৮ জুলাই শিশু রাজনকে নৃশংসভাবে খুন করে দুর্বৃত্তরা। সেই ঘটনার তদন্ত শেষে মোট ১৩ জন আসামির বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করা হয়েছে। এর মধ্যে ১০ জনকে আগেই গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। ঘটনার দু’দিন পর আসামি কামরুল জেদ্দায় পালিয়ে যায়। প্রবাসী বাংলাদেশীরা সেখানে তাকে আটক করেন।

আইজিপির নির্দেশে এআইজি (এনসিবি) মো. মাহবুবুর রহমান ভূঁইয়া আসামি কামরুলকে ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ নেন। তিনি ইন্টারপোলের মাধ্যমে রিয়াদ এনসিবির সহযোগিতা চেয়ে রেড নোটিশ ইস্যুর জন্য অনুরোধ জানান।

পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের অনুরোধে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বন্দী বিনিময়ের জন্য অনুরোধ করেন সৌদি কর্তৃপক্ষকে। এআইজি (এনসিবি) মো. মাহবুবুর রহমান ভূঁইয়া সার্বিক যোগাযোগ অব্যাহত রাখেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে সৌদি আরব কর্তৃপক্ষ আসামি কামরুলকে ফেরত দিতে সম্মত হয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই