মেইন ম্যেনু

‘রাজপথ রক্তাক্ত করে হলেও গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনব’

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান বলেছেন, সারা দেশে ইউপি নির্বাচনের নামে রক্তের হোলি খেলা চলছে। আজকে নির্বাচনের অবস্থা দেখলেই বোঝা যায় দেশে কোনো গণতন্ত্র নেই। গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার যে লড়াই এতে আমাদের সবাইকে সক্রিয়ভাবে এগিয়ে আসতে হবে। আমরা অবশ্যই এ লড়াইয়ে জিতব। স্বাধীনতা যুদ্ধে বাংলার মানুষ যেভাবে বাঁশ ও ইটের টুকরা দিয়ে অস্ত্রধারীদের পরাজিত করেছিল ঠিক সেভাবেই এই ফ্যাসিস্ট সরকারের গুলি বুকে নিয়ে রাজপথ রক্তাক্ত করে হলেও দেশের গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনব।

শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দল আয়োজিত জিয়াউর রহমানের ৩৫তম শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভায় নোমানা এসব কথা বলেন।

আলোচনা অনুষ্ঠানে বিএনপির এ জৈষ্ঠ্য নেতা বলেন, মানুষের মধ্যে পাকিস্তান সম্পর্কে যে ঘৃণা সৃষ্টি হয়েছে তার জন্যে বিএনপির লোকজনও আন্দোলন করেছে। আমরা ৫২ তে আন্দোলন করেছি, ১৯৫৪ সালে নির্বাচনে আন্দোলনের মাধ্যমে আমরা জয় ছিনিয়ে নিয়েছি। দেশে স্বাধীনতার জন্য প্রতিটি আন্দোলেই বিএনপির লোকজনের সম্পৃক্ততা ছিল।

পাঠ্যবইতে ১৯২৩ সালের হিন্দু মুসলিম সম্প্রীতি বজায় রাখার জন্য চুক্তি সই করা নিয়ে ভুল ইতিহাস লিপিবদ্ধ হয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, তিনি কী রকম মেধাবী হয়েছেন যে জিয়াউর রহমানকে অপমান করতে করতে এখন তার নিজের বাবাকেও অপমান শুরু করেছেন। আসলাম চৌধুরী মোসাদের লোকের সঙ্গে ছয় মিনিট কথা বলার জন্য ১০ দিনের রিমান্ডে নেয়া হয়েছে। আর প্রধানমন্ত্রী পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয় ওয়াশিংটনে মোসাদের লোকদের সঙ্গে ২০ মিনিট কথা বলেছেন, এর জন্য তাকেও রিমান্ডে নেয়া উচিত।

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি ইশতিয়াক আজিজ উলফাতের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মোহাম্মদ ইব্রাহীম বীরপ্রতীক, কর্নেল (অব.) জয়নুল আবেদীন, নারায়ণগঞ্জ বার সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন প্রমুখ।






মন্তব্য চালু নেই