মেইন ম্যেনু

রাজশাহী ওয়াসার এমডির স্ত্রীর আত্মহত্যা

রাজশাহী পানি সরবরাহ ও পয়ঃনিষ্কাশন কর্তৃপক্ষের (ওয়াসা) ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ধীরেন্দ্রনাথ সরকারের স্ত্রী চন্দনা রানী সরকার গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন।

সোমবার সকালে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় পরিবারের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, চন্দনা রানী সরকারকে হত্যা করা হয়েছে।

পারিবারিক কলহের জের ধরে চন্দনা রানী সরকারকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে লাশ ঘরের ফ্যানের সঙ্গে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে বলেও তার পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে।

এদিকে স্ত্রী আত্মহত্যা করেছেন দাবি করে ধীরেন্দ্রনাথ সরকার নগরীর রাজপাড়া থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন। খবর পেয়ে পুলিশ বেলা ১১টার দিকে গিয়ে চন্দনা রানী সরকারের লাশ তার শয়নকক্ষের ফ্যানে ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার করে।

নগরীর রাজপাড়া থানার ওসি (তদন্ত) আনিসুর রহমান জানান, সকাল ১০টার দিকে পুলিশ খবর পায় রাজশাহী ওয়াসার এমডি ধীরেন্দ্রনাথ সরকারের স্ত্রী চন্দনা রানী সরকার নিজ শয়নকক্ষে আত্মহত্যা করেছেন।

এরপর পুলিশ গিয়ে পুলিশ চন্দনার লাশ উদ্ধারের ব্যবস্থা করে। সকাল ৯টার দিকে ধীরেন্দনাথ সরকার শরীরচর্চার জন্য বাড়ির বাইরে বের হলে সেই সুযোগে স্ত্রী চন্দনা নিজ শয়নকক্ষে ফ্যানের সঙ্গে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেন। ওড়নার কিছু চুমকি ছিড়ে নিচে মেঝেতে পড়েছিল বলেও জানান ওসি।

ওসি আরো জানান, ধীরেন্দ্রনাথ সরকার সকাল ১০টার দিকে নগরীর কালেক্টরেট মাঠ এলাকায় অবস্থিত সরকারি কোয়ার্টারের ওই বাড়িতে ফিরে দেখেন তার স্ত্রী ঘরের ভেতর থেকে তালা লাগিয়ে দিয়েছেন। এরপর তিনি বারবার স্ত্রীকে ডাকাডাকি করেন। শেষ পর্যন্ত কোনো সাড়া-শব্দ না পেয়ে দুই ছেলেমেয়েকে ডাকেন।

শেষে দুই ছেলেমেয়েকে সঙ্গে নিয়ে নিজ ঘরের দরজার ছিটকানি ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করেন ধীরেন্দ্রনাথ সরকার। এরপর ঘরের ফ্যানের সঙ্গে স্ত্রীর ঝুলন্ত লাশ দেখে তিনি পুলিশকে ফোন দেন।

প্রাথমিক তদন্তে পাওয়া গেছে, স্বামীর সঙ্গে পারিবারিক কলহের জের ধরে দুই সন্তানের জননী চন্দনা রানী গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন বলেন ওসি আনিসুর রহমান। তবে তারপরেও কেউ যদি বিষয়টি নিয়ে কোনো অভিযোগ করে থাকেন, এ জন্য বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে। কেউ অভিযোগ করলে সেভাবেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান ওসি।

এদিকে চন্দনা রানীর পরিবার থেকে অভিযোগ করা হয়েছে, তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। হত্যার পর বিষয়টি ধামাচাপা দিতে লাশ ফ্যানের সঙ্গে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে।

তবে এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন ওয়াসার এমডি ধীরেন্দ্রনাথ সরকার। তিনি বলেন, পারিবারিক কিছু সমস্যার কারণে স্ত্রী স্বেচ্ছায় গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। তাকে কোনো নির্যাতন করা হয়নি বা হত্যা করা হয়নি।






মন্তব্য চালু নেই