মেইন ম্যেনু

রাতের বেলা ঘুম হয় না? জেনে নিন শতভাগ প্রাকৃতিক সমাধান

Insomnia বা অনিদ্রা হচ্ছে ঘুমের একটি রোগ যার বৈশিষ্ট্য হচ্ছে ঘুম না হওয়া বা বিভিন্ন সমস্যায় ঘুমাতে না পারা। এর ফলাফল স্বরূপ দিনের বেলায় অলসতা, দুশ্চিন্তা, মাথা ব্যাথা, বিষন্নতা, ত্রুটিপূর্ণ কর্মদক্ষতা ছাড়া অন্যান্য বিভিন্ন সমস্যা দেখা দেয়। অনিদ্রা সাধারণত দুই ধরনের, একটি হচ্ছে তীব্র ও অন্যটি হচ্ছে দীর্ঘস্থায়ী। তীব্র অনিদ্রা সাধারণত ১/২ দিন থেকে এক সপ্তাহ পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে অপরদিকে দীর্ঘস্থায়ী অনিদ্রা প্রায় মাস খানেক বা তার চেয়ে বেশি সময় স্থায়ী হতে পারে। অনিদ্রা বিভিন্ন কারনে হয়ে থাকে তার মাঝে উদ্বেগ, দুশ্চিন্তা, বিষন্নতা, কম ঘুমানোর স্বভাব, মানসিক রোগের জন্য, জীবন যাত্রার পরিবর্তন, ঘুমানোর পরিবেশ বদল হলে, দীর্ঘস্থায়ী ব্যাথায়, ক্যাফেইন বা অন্য উত্তেজক কিছুর প্রভাবে, শ্বাস কষ্টে এবং কিছু অসুস্থ অবস্থায় যেমন হার্ট ফেইল, আর্থ্রাইটিস, অ্যাসিডিটি ইত্যাদির সমস্যায় হতে পারে। আবার বেশ কিছু ঔষধেরও যেমন corticosteroids, beta-blockers, ACE inhibitors, alpha-blockers ইত্যাদির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কারনেও অনিদ্রা হতে পারে। অনিদ্রার সমস্যা যাদের মাঝে রয়েছে একমাত্র তারাই এর কষ্টটা বুঝতে পারেন।

এখানে অনিদ্রার সমস্যায় কিছু প্রাকৃতিক ঘরোয়া সমাধান দেয়ার চেষ্টা করবো

জিরা

জিরা হচ্ছে রান্নার একটি বহুল প্রচলিত মশলা যার রয়েছে ঔষধি গুনাগুন এবং হজমে সাহায্য করার ক্ষমতা। আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা শাস্ত্রে জিরাকে ঘুম বাড়ানোর ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়। এছাড়া জিরার তেল স্থিরতা আনতে সহায়তা করে। একটি পাকা কলার সাথে ১ চা চামচ জিরার গুড়া মিশিয়ে রাতে ঘুমাতে যাবার আগে খেয়ে নিন। এছাড়াও জিরা ফুটিয়ে চা তৈরি করে খেলে অলসতা ও ক্লান্তি বোধ কেটে যায়। কারণ অনিদ্রার ফলে অলসতাও তৈরি হয়। এই চা তৈরি করতে হলে ১ চা চামচ জিরা একটি পাত্রে নিয়ে চুলায় অল্প আঁচে ৫ সেকেন্ড ভেজে নিয়ে এক কাপ গরম পানিতে সামান্য ফুটিয়ে চুলা বন্ধ করে ঢেকে ৫ মিনিট রাখুন। তারপর ছেঁকে নিয়ে খেয়ে নিন ঘুমাতে যাওয়ার আগে।

জয়ফল

জয়ফলের রয়েছে উত্তেজনা প্রশমন করে প্রশান্তি দেয়ার মত গুণাবলী এবং এটি প্রাকৃতিক ভাবেই ঘুম আসতে সহায়তা করে। ১/৮ বা ১/৪ চা চামচ জয়ফল গুঁড়ো কুসুম এক কাপ গরম পানিতে মিশিয়ে নিয়ে ঘুমাতে যাবার আগে খেয়ে নিন। আবার ঘুমাতে যাবার আগে ১/৪ চা চামচ জয়ফল গুঁড়ো চাইলে এক কাপ যেকোন ফলের জুসের মিশিয়ে খেতে পারেন। অথবা সামান্য জয়ফল গুঁড়ো এক টেবিল চামচ আমলকীর রসের সাথে মিশিয়ে দিনে ৩ বার খান যা বিষন্নতা ও হজমের সমস্যা দূর করবে।

জাফরান

জাফরানেরও রয়েছে প্রশান্তিদায়ক গুণাবলী যা অনিদ্রা দূর করতে সাহায্য করে। সামান্য জাফরান এক কাপ কুসুম গরম পানিতে মিশিয়ে ঘুমাতে যাবার আগে খেতে পারেন।

ক্যামোমিল চা

অনিদ্রা দূর করার প্রাকৃতিক চিকিৎসার ক্ষেত্রে ক্যামোমিল চা বেশ জনপ্রিয়।ক্যামোমিলে থাকা apigenin নামক যৌগে রয়েছে প্রশান্তিদায়ক গুনাগুন।তাই অনিদ্রা দূর করতে এক কাপ ক্যামোমিল চা পান করুন সামান্য মধু মিশিয়ে।

কলা

অনিদ্রা দূর করতে কলা বেশ উপকারী। কারণ কলাতে থাকা ট্রিপটোফেন নামক অ্যামাইনো এসিড সেরেটোনিনের মাত্রা বৃদ্ধি করে যা ঘুমের প্যাটার্নকে পরিচালনা করে। আবার কলা ক্ষুধা নিয়ন্ত্রন করতে এবং মেজাজ ভালো রাখতে সাহায্য করে।

কুসুম গরম দুধ

কুসুম গরম দুধ শরীর ও মনকে প্রশান্ত করতে একটি উৎকৃষ্ট ঘরোয়া উপায়। এছাড়া দুধেও রয়েছে ট্রিপটোফেন নামক অ্যামাইনো এসিড যা ঘুমকে নিয়ন্ত্রন করে। ১/৪ চা চামচ দারুচিনি গুঁড়ো এক কাপ কুসুম গরম দুধে মিশিয়ে ঘুমাতে যাওয়ার ১ ঘণ্টা আগে খেতে পারেন ভালো ঘুমের জন্য।

মেথিশাকের রস

মেথি সাধারণত অনিদ্রা, মাথা ঘোরানো এবং উদ্বিগ্নতা কমাতে সাহায্য করে। ২ চা চামচ মেথিশাকের রস ১ চা চামচ মধুর সাথে মিশিয়ে প্রতিদিন খান।

গরম পানিতে গোসল

রাতে ঘুমাতে যাওয়ার ২ ঘণ্টা আগে কুসুম গরম পানিতে গোসল করলে অনিদ্রা থেকে অনেকটা দূরে থাকা যায়। এই নিয়মটি শরীরের ইন্দ্রীয়গুলোকে শিথিল ও প্রশান্ত করতে সাহায্য করবে। তাই এই উপায়টিকে আরো কার্যকরী করতে চাইলে গোসলের কুসুম গরম পানিতে যোগ করতে পারেন লেমন, ল্যাভেন্ডার, রোজমেরী বা ক্যামোমিলের মত কিছু এসেন্সিয়াল ওয়েল।

আপেল সিডার ভিনেগার এবং মধু

আপেল সিডার ভিনেগারে রয়েছে কিছু অ্যামাইনো এসিড যা অলসতা দূর করতে সাহায্য করে এবং সেই সাথে এটি ট্রিপটোফেন থাকা ফ্যাটি এসিডকে ভাঙতে সাহায্য করে। মধুও ঘুম বাড়াতে সাহায্য করে। কারন এটি ইনসুলিনের মাত্রা বাড়ায় এবং মস্তিস্কে থাকা সেরোটোনিন নামক যৌগ নির্গত করতে সাহায্য করে যা ঘুমানোর ও জেগে উঠার চক্রকে নিয়ন্ত্রণ করে। ২ চা চামচ আপেল সিডার ভিনেগার এবং ২ চা চামচ খাটি মধু কুসুম গরম পানিতে মিশিয়ে ঘুমাতে যাবার আগে খেতে পারেন অনিদ্রা দূর করতে চাইলে। আবার তৈরি করতে পারেন একটি টনিক। ২ চা চামচ আপেল সিডার ভিনেগারের সাথে এক কাপ মধু মিশিয়ে রেখে প্রতিদিন ঘুমাতে যাবার আগে ১ টেবিল চামচ করে খেতে পারেন।

উপরে উল্লেখিত উপায়গুলো অনুসরণ করা ছাড়াও নিয়মিত ভালো ঘুমের জন্য কিছু নিয়ম মেনে চলা অবশ্যই উচিত। যেমন-

– ঠিক ঘুমাতে যাবার আগে বেশি খাবার খাবেন না

– রাতের খাবার দেরি করে খাবেন না

– শান্ত ও অন্ধকার ঘরে ঘুমান

– প্রশান্তিদায়ক কিছু ব্যায়াম করতে পারেন

– সম্ভব হলে যোগব্যায়াম করুন

– খাবার তালিকা থেকে ক্যাফেইন জাতীয় জিনিসগুলো বর্জন করুন

এসব কিছুর পরও যদি দৈনন্দিন জীবন যাত্রা অনিদ্রার জন্য ব্যাহত হয় তাহলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

লেখক
শওকত আরা সাঈদা(লোপা)
জনস্বাস্থ্য পুষ্টিবিদ
এক্স ডায়েটিশিয়ান,পারসোনা হেল্‌থ
খাদ্য ও পুষ্টিবিজ্ঞান(স্নাতকোত্তর)(এমপিএইচ)
মেলাক্কা সিটি, মালয়েশিয়া।

Photo: www.west-info.eu






মন্তব্য চালু নেই