মেইন ম্যেনু

রানীকে মেরে ফেললেন বিবিসির সাংবাদিক

টুইটারে তার প্রথম বার্তাটি ছিল ব্রিটেনের রানী এলিজাবেথ অসুস্থ্ হয়ে পড়েছেন। তিনি লন্ডনের কিংস এডওয়ার্ড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। পরের বার্তাটি ছিলো আরও ভয়ঙ্কর-মারা গেছেন রানী। এ খবরে রীতিমতো হৈচৈ পড়ে যায় গণমাধ্যমগুলিতে। পরে অবশ্য জানা যায়-পুরো বিষয়টি ভুল তথ্যের কারণে ঘটেছে। আর এ কাণ্ডটি ঘটিয়েছেন বিবিসির উর্দু বিভাগের সাংবাদিক আহমেন খাওয়াজা।

এ ঘটনার পর বিবিসি এক বিবৃতিতে বলেছে, রানী মারা গেলে তার মৃত্যু সংবাদ কী করে প্রকাশ করা হবে সে বিষয়ে কারিগরি পর্যায়ের অনুশীলন চলছিল। আর এ সময়ে রাজপরিবারের এক সদস্যের অসুস্থ হয়ে পড়ার খবরটি বিবিসির এক সাংবাদিকের অ্যাকাউন্ট থেকে ভুলে পাঠানো হয়। পরে টুইটারের এ বার্তা দ্রুত মুছে ফেলা হয়েছে এবং এ জন্য ক্ষমা চেয়েছে সংবাদ সংস্থাটি।

বিবিসির সূত্রের বরাত দিয়ে ব্রিটিশ দৈনিক দ্যা টেলিগ্রাফ জানিয়েছে, খাওয়াজা এ অনুশীলন পর্বের সঙ্গে জড়িত ছিলেন না। তিনি হয়ত এ কথা শুনতে পেয়েছেন এবং ব্রেকিং নিউজ মনে করে তা টুইট করেছেন।

খাওয়াজা অবশ্য তার ভুল টুইটার বার্তার জন্য ক্ষমা চেয়েছেন। একটি বার্তায় তিনি বলেন, ‘ভুল বার্তা’। দ্বিতীয় বার্তাটিতে তিনি বলেন, ‘ফোনটি বাসায় অরক্ষিত অবস্থায় রেখে এসেছি। রুচিহীন ঠাট্টা, কাউকে বিব্রত করে থাকলে ক্ষমাপ্রার্থী।

বাকিংহাম রাজপ্রাসাদ থেকে পরে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, রানী সুস্থ্য আছেন।

এদিকে খাওয়াজার টুইটার বার্তার বিষয়ে তদন্ত শুরু করেছে বিবিসি। শৃঙ্খলা ভঙ্গের জন্য তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হতে।






মন্তব্য চালু নেই