মেইন ম্যেনু

রামগঞ্জে বন কর্মচারীর উপস্থিতিতে শতাধিক সরকারি গাছ লুট

লক্ষ্মীপুর রামগঞ্জ উপজেলার ৯নং ভোলাকোট ইউনিয়নের দেবগর গ্রামের আবুল কালাম সওদাগর বাড়ির সামনে শতাধিক সরকারি গাছ কর্তন করে বাচ্চু বাহিনীর লোকজন কর্তৃক লুটপাট করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে গত দুইদিন ধরে দুই দিনব্যাপী। লুটপাটের সংবাদটি সর্বত্র ছড়িয়ে পড়লে লুটপাটকারী গাছের কিছু ডাল আথাকরা উচ্চ বিদ্যালয়ের উন্নয়নের নাম করে বিদ্যালয় মাঠে স্তুপ করে রাখা হয়েছে। স্থানীয় দেবনগর গ্রামের মেম্ব^ার বাচ্চু, প্রভাবশালী আ. আজিজ ও রামগঞ্জ উপজেলা ফরেস্টার অফিসের প্লান্টেশন সহকারী সেলিমের নেতৃত্বে এ লুটপাটের ঘটনা ঘটে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলা দেবনগর গ্রামের ওয়াব মেম্ব^ার বাড়ির আ. আজিজ দীর্ঘদিন থেকে প্রায় ৫০ শতক সম্পত্তিতে বাড়ি করার প্লান করে সরকারি রাস্তার পাশে থাকা শতাধিক মেহগনি, শিশু, কড়াই গাছ স্থানীয় বাচ্চু মেম্ব^ারের মাধ্যমে দুই দিনব্যাপী ৩০-৪০ জন লেবার নিয়ে তড়িঘড়ি করে ওই গাছগুলো কর্তন করে লুটপাটের মহাআয়োজন সম্পন্ন করে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন লেবার জানান, লুটপাটকৃত কিছু গাছ বিষ্ণপুর গ্রামে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। বাকি কিছু ডালপালা আতাকরা উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে রাখা হয়েছে। এর বেশি কিছু জানি না। ঘটনায় দেবনগর গ্রামের ওয়ার্ড মেম্ব^ার মো. বাচ্চু জানান, বিদ্যালয়ের উন্নয়নের জন্য কিছু সরকারি গাছ কাটা হয়েছে সত্য। আর আ. আজিজ ভবিষ্যতে ওইখানে একটি বাড়িও করবে। অফিসের অনুমতি ও বনবিভাগের অফিসার সেলিমের উপস্থিতিতেই গাছগুলো কাটা হয়েছে। ভাই সব সত্য বলছি। এর পরেও আপনি যদি লেখেন তাহলে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানের সঙ্গে যোগাযোগ করে লিখবেন। আথাকরা করা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মজিবুর রহমান জানান, বিদ্যালয়ের উন্নয়নের জন্য আমি উপজেলা পরিষদ বরাবর আবেদন করেছি। তবে সরকারি গাছ কাটার জন্য নয়। রামগঞ্জ ফরেস্ট অফিসের প্লান্টেশন সহকারী সেলিম জানান, রামগঞ্জ উপজেলা বন কর্মকর্তা ইউসুফ হোসেনের নির্দেশে গাছ কাটার সময় আমি ওইখানে উপস্থিত ছিলাম। এর চেয়ে বেশি কিছু জানি না। বারবার মেবাইল ফোনে রামগঞ্জ উপজেলা বন কর্মকর্তা ইউসুফ হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করেও তাকে পাওয়া যায়নি।






মন্তব্য চালু নেই