মেইন ম্যেনু

রাশিয়াকে ভয় পাওয়ার কিছু নেই : পুতিন

পশ্চিমাদের উদ্দেশে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন, রাশিয়াকে ভয় পাওয়ার কিছু নেই।

শনিবার প্রকাশিত এক সাক্ষাৎকারে পুতিন বলেছেন, পশ্চিমাদের জন্য রাশিয়া মোটেও কোনো হুমকি নয়।

সাবেক সোভিয়েত-দেশ ইউক্রেনে নতুন করে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ার পর পুতিন বলেছেন, তিনি ইউক্রেনে শান্তি চুক্তি চান।

এক প্রতিবেদনে এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা এএফপি।

খবরে বলা হয়, ইতালীয় সংবাদপত্র ‘কোরিরে ডেলা সেরা’কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে পুতিন ন্যাটো বনাম রাশিয়া সম্ভাব্য যুদ্ধের সমালোচনাকে নাকচ করে দিয়েছেন।

পুতিনের ভাষায়, ‘আমি এটা বলতে চাই যে, রাশিয়াকে ভয় পাওয়ার কিছু নেই।’

পুতিন বলেন, ‘পৃথিবী অনেক বদলেছে। বড় মাপের সামরিক যুদ্ধের কথা আজকাল মানুষ আর সুস্থ মস্তিষ্কে চিন্তাই করতে পারে না।’

যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশগুলোর উদ্দেশে রুশ প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘আমি আপনাদের আশ্বস্ত করতে পারি, আমাদের করার মতো আরও অনেক কিছু রয়েছে।’

পুতিন যোগ করেন, ‘ন্যাটেকে সহসা আক্রমণ করবে রাশিয়া— এ চিন্তা করতে পারে কেবলমাত্র অসুস্থ কোনো মানুষ, এমনকি তাও শুধু ঘুমের মধ্যে।’

আসছে সপ্তাহে ইতালী সফরে যাবেন রুশ প্রেসিডেন্ট। এর আগে তিনি ইতালীয় গণমাধ্যমকে এমন সাক্ষাৎকার দিয়েছেন।

সেখানে পুতিন বলেছেন, কেবলমাত্র বাইরের হুমকির মোকাবেলা করার কথা প্রকাশ্যে বলে আসছে রাশিয়া।

প্রতিরক্ষা খাতে ন্যাটোভুক্ত দেশগুলোর বাজেট রাশিয়ার চেয়ে নিদেনপক্ষে ১০ গুণ বেশি উল্লেখ করে পুতিন বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক খাতে বাজেট তো বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে বেশি।

এর আগে শুক্রবার মার্কিন প্রতিরক্ষা সদরদফতর পেন্টাগনের কর্মকর্তারা বলেছেন, ইউরোপে অতিরিক্তি নিরাপত্তা জোরদারের কথা চিন্তা করছে যুক্তরাষ্ট্র। এমনকি ইউরোপের ভূমিতে মিসাইল প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাও গড়ে তুলতে চায় মার্কিন প্রশাসন।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে শনিবার পুতিনের সাক্ষাৎকারটির লিখিত রূপ প্রকাশ করল ক্রেমলিন।

ইউক্রেন প্রসঙ্গে পুতিন দুষেছেন কিয়েভ কর্তৃপক্ষকে। পুতিন অভিযোগ করেন, ফেব্রুয়ারিতে ইউরোপীয় মধ্যস্থতায় যে অস্ত্রবিরতির চুক্তি সই হয়েছিল বেলারুশের রাজধানী মিনস্কে, তা কার্যকর করার বিষয়ে বরাবরই অনিচ্ছা দেখিয়েছে ইউক্রেন।

পুতিন বলেন, ‘কিয়েভ প্রতিনিধিরা বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সঙ্গে আলাপে বসতেই চান না। এবং এ নিয়ে আমাদের আর কিছুই করার নেই।’

পূর্ব ইউক্রেনের বিদ্রোহীদের সঙ্গে কিয়েভ যেন সমঝোতা করে, সে জন্য পশ্চিমারাকে উদ্যোগ গ্রহণের আহ্বান জানান রুশ প্রেসিডেন্ট।

প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালের এপ্রিল থেকে পূর্ব ইউক্রেনে চলমান সহিংসতায় অন্তত ছয় হাজার চার শ’ মানুষ নিহত হয়েছেন।






মন্তব্য চালু নেই