মেইন ম্যেনু

রোহিঙ্গাদের জন্য ত্রাণবাহী জাহাজ চট্টগ্রামে

বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া মিয়ানমারের রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য এক হাজার ৪৭২ টন ত্রাণ নিয়ে মালয়েশীয় জাহাজ নটিক্যাল আলিয়া চট্টগ্রাম বন্দরে এসে পৌঁছেছে। মঙ্গলবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১১টায় চট্টগ্রাম বন্দরের সিসিটি জেটিতে এসে পৌঁছায় জাহাজটি। এই ত্রাণ মঙ্গলবার থেকেই ট্রাকে করে কক্সবাজারে নিয়ে যাওয়া হবে।

গত ৩ ফেব্রুয়ারি জাহাজটি মালয়েশিয়া থেকে রওনা হয়। বৃহস্পতিবার রেঙ্গুন হয়ে মঙ্গলবার বাংলাদেশে পৌঁছায় জাহাজটি।

কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক আলী হোসেন বলেন, ১৫ হাজার পরিবারের মধ্যে এই ত্রাণ বিতরণ করা হবে। এর মধ্যে পাঁচ হাজার ৫০০ পরিবার টেকনাফে এবং ৯ হাজার ৫০০ পরিবার উখিয়ায়।

তিনি জানান, মঙ্গলবার থেকেই জাহাজের পণ্য খালাস শুরু হবে। পণ্যগুলো নামানোর পর সড়কপথে কক্সবাজারে নেওয়া হবে। ১৫০টির মতো ট্রাকে করে নেওয়া হবে ত্রাণ। প্রতিটি ট্রাকে ১০ মেট্রিক টন ত্রাণ বহন করা হবে।

জেলা প্রশাসক আলী হোসেন আরও জানান, ত্রাণ সামগ্রীর মধ্যে ৩৫টি আইটেমের পণ্য রয়েছে। এগুলো মূলত খাদ্যসামগ্রী ও নিত্য প্রয়োজনীয় উপকরণ। এর মধ্যে রয়েছে-খাদ্যশস্য, ভোজ্য তেল, কফি, চিনি, চাল, কম্বল, চিকিৎসা সামগ্রীসহ বিভিন্ন পণ্য।

কবে নাগাদ ত্রাণ বিরতণ শুরু হবে প্রশ্নে আলী হোসেন জানান, ‘পণ্য কক্সবাজারে পৌঁছার পর প্রয়োজনীয় প্রক্রিয়া শেষ করে তিন চার দিনের মধ্যেই ত্রাণ বিতরণ করা সম্ভব হবে। ত্রাণ বিতরণের জন্য দুটি সমন্বয় কমিটি গঠন করা হয়েছে। একটি জেলা পর্যায়ে, আরেকটি উপজেলা পর্যায়ে। জেলা কমিটির প্রধান অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) কক্সবাজার। এই কমিটি ১৬ সদস্যের। আর উপজেলা পর্যায়ের কমিটির প্রধান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।’

জাহাজ থেকে পণ্য হস্তান্তর অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসন মো. শামুসল আরেফিন, কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক আলী হোসেন, বাংলাদেশে নিযুক্ত মালয়েশিয়ার রাষ্ট্রদূত নূর আশেকিন বিন্তি মো. সাইব, রিয়ার অ্যাডমিরাল খোরশেদ আলম, সচিব (মেরিটাইম অ্যাফেয়ার্স ইউনিট) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, বন্দর, নৌবাহিনী, কোস্টগার্ড ও পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।






মন্তব্য চালু নেই