মেইন ম্যেনু

‘রোয়ানু’র বৃষ্টিতে ঢাকায় জলাবদ্ধতা

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ‘রোয়ানু’ উপকূলে আঘাত হানার আগেই বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে ঢাকায়। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে গত দু’দিন ধরে প্রায় সারাদেশেই বৃষ্টি হচ্ছে।

ঘূর্ণিঝড় ‘রোয়ানু’ শনিবার (২১ মে) দুপুরের মধ্যে চট্টগ্রাম ও বরিশাল উপকূলে আঘাত হানতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর।

শুক্রবার রাত থেকে ঢাকায় বৃষ্টি হচ্ছে। আবহাওয়া অধিদফতরের হিসাব অনুযায়ী, শনিবার সকাল ৬টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় ঢাকায় ২১ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।

ঘূর্ণিঝড় ‘রোয়ানু’ বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকার কাছাকাছি চলে আসায় চট্টগ্রাম, মংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ৭ নম্বর, কক্সবাজার বন্দরকে ৬ নম্বর বিপদ সংকেত দেখাতে বলেছে আবহাওয়া বিভাগ।

মাঝারি বৃষ্টিতে ঢাকার নিচু এলাকার পথ-ঘাট পানিতে তলিয়ে গেছে। শনিবার সাপ্তাহিক ছুটির সঙ্গে বুদ্ধ পূর্ণিমার ছুটি, তার উপর বৃষ্টি থাকায় শনিবার সকাল থেকেই রাজধানীর পথ-ঘাট কিছুটা ফাঁকা। রাস্তায় গাড়ির সংখ্যাও কম।

গাড়ির সংখ্যা কম থাকায় সকাল সাড়ে ৯টার দিকে রাজধানীর যাত্রাবাড়ীর কাজলা বাসস্ট্যান্ডসহ আশপাশের রাস্তায় বেসরকারি চাকরিজীবীসহ বিভিন্ন স্তরের মানুষের ভিড় দেখা গেছে। অনেকেই বৃষ্টিতে ভিজে রাস্তায় দাঁড়িয়ে ছিলেন।

বৃষ্টিতে রাজধানীর মালিবাগ, মগবাজার, মৌচাক, রাজারবাগ, যাত্রাবাড়ী, নিউমার্কেট, শান্তিনগর, গ্রিনরোড, খিলগাঁও, বনশ্রী, গোরান, মুগদা, মাদারটেক, মাতুয়াইল, ডেমরা, দনিয়া, শ্যামপুর, জুরাইন, বাসাবো, রামপুরা, মিরপুর, পল্লবীসহ বিভিন্ন এলাকা জলাবদ্ধ হয়ে পড়েছে। এ সব এলাকার রাস্তাঘাট পানিতে তলিয়ে গেছে। কোনো কোনো বাড়িতেও প্রবেশ করেছে পানি।

মগবাজারের আমবাগান এলাকার বাসিন্দা বেসরকারি চাকরিজীবী মো. নুরুজ্জামান বলেন, ‘অফিসে যাওয়া প্রয়োজন কিন্তু রাস্তায় হাঁটু পানি থাকায় বাসা থেকে বের হতে পারছি না।’

সকাল ৯টার দিকে রাজধানীর মাতুয়াইল কবরস্থান থেকে রায়েরবাগে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক পর্যন্ত যাওয়ার রাস্তাটির বেশির ভাগ অংশ জলাবদ্ধ অবস্থায় দেখা গেছে।

শনিবার সকাল ৬টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় রাজশাহী বিভাগ ছাড়া প্রায় সারাদেশেই বৃষ্টি হয়েছে। এ সময়ে সবচেয়ে বেশি বৃষ্টি হয়েছে পটুয়াখালীর খেপুপাড়ায়, সেখানে ১৮০ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই