মেইন ম্যেনু

লোয়ার ব্যাক পেইন থেকে মুক্তির সহজ উপায়

ভারী কোন কিছু ওঠানোর জন্য হয়তো ভুল ভাবে ঝুঁকেছিলেন, যার কারণে আপনার কোমরে ব্যাথা করছে অথবা আপনার আরথ্রাইটিসের সমস্যা আছে ইত্যাদি কত কারণেই পিঠে ব্যথা হয়ে থাকে। কারণ যাই হোক না কেন, সমস্যা হলো আপনি লোয়ার ব্যাক পেইনে আক্রান্ত। সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে যে আমেরিকার প্রতি ৪ জনের মধ্যে ১ জন লোয়ার ব্যাক পেইনে ভোগেন। প্রায় সব মানুষই জীবনের কোন না কোন সময় লোয়ার ব্যাক পেইন এ আক্রান্ত হন। এর নির্দিষ্ট কোন প্রতিকার নেই। কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করে আপনি ভালো থাকতে পারেন। আসুন জেনে নেই এর প্রতিকার গুলো সম্পর্কে।

১। জবুথবু হয়ে বসে থাকবেন না

লোয়ার ব্যাক পেইনের সবচেয়ে মামুলি কারণ হচ্ছে ভুল ভাবে বসার ধরণ। জবুথবু হয়ে বসলে জয়েন্টে, মাংসপেশীতে এবং ডিস্কে চাপ পড়ে ফলে ব্যাথার সৃষ্টি হয়। তাই বাড়িতে বা বাসায় সোজা হয়ে বসুন।

২। এন্ডোরফিনের নিঃসরণ বাড়ান

এন্ডোরফিন একপ্রকার হরমোন যা ব্যাথা কমাতে সক্ষম। এন্ডোরফিন ব্যথার অনুভূতি মস্তিষ্কে প্রেরণ করতে বাঁধা প্রদান করে। এছাড়াও এন্ডোরফিন দুশ্চিন্তা, মানসিক চাপ ও হতাশা উপশম করে যা ক্রনিক ব্যাক পেইন এর সাথে সম্পর্কিত। এই এন্ডরফিনের নিঃসরণ বাড়াতে এ্যারোবিক এক্সারসাইজ ও মেডিটেশন করুন।

৩। পর্যাপ্ত ঘুম প্রয়োজন

ব্যাক পেইনের রোগীদের দুই-তৃতীয়াংশেরই ঘুমের সমস্যা হতে দেখা যায়। যারা ইনসমনিয়াতে ভোগেন তাদের পিঠের ব্যথাও মাত্রাতিরিক্ত হতে দেখা যায়। শুধু ব্যাথার চিকিৎসা করে এই দুষ্ট চক্র হতে বের হওয়া যাবেনা। যদি ঘুমের সমস্যা থাকে তাহলে আগে তার চিকিৎসা করতে হবে।

৪। ঠাণ্ডা ও গরম থেরাপি নিন

ঠাণ্ডা থেরাপি নেয়ার উপকারিতা হচ্ছে- এটা প্রদাহ কমায় এবং নার্ভ এর খিঁচুনি বন্ধ করে ব্যথা কমানোর জন্য লোকাল এনেস্থেসিয়ার মত কাজ করে।

গরম থেরাপি নেয়ার উপকারিতা হচ্ছে, এটা রক্তের প্রবাহকে উদ্দীপিত করে যা দেহের পশ্চাৎদেশে ব্যথা উপশম কারী উপাদান গুলোকে নিয়ে আসে এবং ব্যথার ম্যাসেজ মস্তিষ্কে পৌঁছতে বাঁধা দেয়।

কিছু টিপস-

-হাই হিল বাদ দিয়ে স্যান্ডেল পড়ুন।
-ভারী জিনিষ বহন করা বা উঠানো বন্ধ করুন।
-বিভিন্ন দামি যন্ত্র ব্যাবহার করে রাতারাতি ভালো হয়ে যাওয়ার চিন্তা বাদ দিন।
-ওজন কমানোর চেষ্টা করুন।
-ধূমপানের অভ্যাস থাকলে বাদ দিন।
-এই রোগে আক্রান্ত হয়ে খুবই মারাত্মক পর্যায়ে যাওয়ার (সার্জারি ও ইনজেকশন এর প্রয়োজন পড়া) ইত্যাদি গল্প শুনে হতাশ হবেন না। কারণ বেশির ভাগ লোয়ার ব্যাক পেইন খুব অল্প সময় স্থায়ী হয় এবং ব্যায়াম ও বসার সঠিক পদ্ধতি অবলম্বন করে সুস্থ থাকা যায়।

যদি লোয়ার ব্যাক পেইন এর ব্যাথা ১ থেকে ২ সপ্তাহ থাকে এবং আপনার পায়ে দুর্বলতা বা অসাড়তা অনুভব করেন অথবা দাঁড়িয়ে থাকতে বা হাঁটতে অসুবিধা হয় তাহলে ডাক্তার দেখান।এমনিতেই ভালো হয়ে যাবে আসা করে বসে থাকবেন না।

লিখেছেন-

সাবেরা খাতুন






মন্তব্য চালু নেই