মেইন ম্যেনু

শরীরের সুস্থতায় স্ট্রবেরির কার্যকারিতা

টকটকে লাল রঙের ছটা যেন পুরোটায় স্ট্রবেরিতে। টক-মিষ্টি স্বাদের এই ফলটির মনকাড়া ঘ্রাণে মাতোয়ারা অনেকেই। সুস্বাদু এবং সুদৃশ্য এই ফলটি বেশ সুলভে পাওয়া যায়। বর্তমানে আমাদের দেশে স্ট্রবেরির উৎপাদন হচ্ছে ব্যাপক হারে। ফলটি খেতে যেমন ‍সুস্বাদু তেমনি পুষ্টিগুণেও সেরা। প্রতি ১০০ গ্রাম খাদ্য উপযোগী স্ট্রবেরিতে পাবেন, খাদ্যশক্তি ৩২ কিলোক্যালরি, কার্বোহাইড্রেটস ৭.৭ গ্রাম, প্রোটিন ০.৬৭ গ্রাম, ফোলেট ২৪ মাইক্রোগ্রাম, নিয়াসিন ০.৩৮৬ মিলিগ্রাম, ভিটামিন এ ১২ আইইউ, ভিটামিন সি ৫৮.৮ মিলিগ্রাম, ভিটামিন ই ০.২৯ মিলিগ্রাম, ভিটামিন কে ২.২ মাইক্রোগ্রাম, সোডিয়াম ১ মিলিগ্রাম, পটাসিয়াম ১৫৩ মিলিগ্রাম, ক্যালসিয়াম ১৬ মিলিগ্রাম, লৌহ ০.৪১ মিলিগ্রাম, ম্যাগনেসিয়াম ১৩ মিলিগ্রাম, জিংক ০.১৪ মিলিগ্রাম। এসব উপাদান আমাদের শরীরের নানা সমস্যা দূর করতে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে। দেখে নেয়া যাক আমাদের সুস্থতায় স্ট্রবেরির কার্যকারিতা।

– স্ট্রবেরিতে উপস্থিত খাদ্যশক্তি দ্রুত আপনার শরীরের দুর্বলতা কাটাতে সক্ষম। পরিশ্রমের কাজ করার পর ক্ষয় পূরণ করতে বেছে নিতে পারেন সুস্বাদু স্ট্রবেরি।

– স্ট্রবেরিতে থাকা উচ্চ মাত্রার অ্যান্টি অক্সিডেন্ট ক্যানসার রোধে দারুণভাবে সাহায্য করে। বয়সের ছাপ, রোগের সংক্রমণ এবং স্নায়ুতন্ত্রের রোগ সারাতে এই উপাদান কাজ করে।

– স্ট্রবেরিতে উপস্থিত ভিটামিন সি ত্বক, নখ এবং দাঁতের সুরক্ষায় সহায়তা করে। রোগ প্রতিরোধেও সহায়তা করে।

– ভিটামিন বি কমপ্লেক্সে ভরপুর একটি ফল স্ট্রবেরি। এতে প্রচুর পরিমানে বি-৬, নিয়াসিন, রিবোফ্লাভিন এবং ফলিক অ্যাসিড রয়েছে। এসব উপাদান বিপাক ক্রিয়াকে শক্তিশালী করে এবং প্রয়োজনীয় প্রোটিন শোষণে সহায়তা করে।

– এতে উপস্থিত ভিটামিন এ আপনার চোখের স্বাস্থ্য সুরক্ষা করে।

– নিয়মিত স্ট্রবেরি খেলে বয়সের ছাপ দূর হয়। ত্বকের লাবণ্য ফিরিয়ে আপনাকে করবে প্রাণবন্ত।

– স্ট্রবেরিতে উপস্থিত লৌহ রক্তের কণিকা বাড়াতে সাহায্য করে।

– এতে উপস্থিত পটাসিয়াম রক্ত কণিকা গুলোকে সচল রাখে। হৃদযন্ত্রের সুস্থতায় এই ভূমিকা অনেক বেশি কার্যকরী।

– স্ট্রবেরিতে উপস্থিত ফ্লুরাইড হাড় ও দাঁতের গঠনে কাজ করে। বিশেষ করে দাঁতের সমস্যা রোধে এই উপাদানের ভূমিকা অনেক বেশি।






মন্তব্য চালু নেই