মেইন ম্যেনু

শরীরে ছড়াতে পারে কাপড়ের বিষ!

পানি, খাদ্য, মাটি, সবজি এমনকি নিঃশ্বাস নেওয়ার বাতাসে পর্যন্ত মিশে আছে বিষ। বর্তমান সময়ে দৈনন্দিন জীবনকে বিষযাত্রা বললেও বাড়িয়ে বলা হয় না। কিন্তু তাই বলে নতুন বিষের আতংক!

বিষের পুরানো সব ভয়াবহতা আজকাল আমাদের গা সওয়া হয়ে গেছে। সচেতন থাকার চেষ্টা করি ঠিকই, তবে ‘এই শেষ’ ভেবে জেনে শুনেও গ্রহণ করছি বিষাক্রান্ত খাবার, পানীয় কিংবা দূষিত বাতাস। তবে এখন ভিন্ন খবর, পোশাকেও থাকতে পারে ক্ষতিকারক বিষ!

কাপড়ে বিষ- শুনে হয়তো মনে হতে পারে, কমদামী কিংবা লোকাল পণ্যই এই বিষ ছড়ায় শরীরে। কিন্তু না, ব্র্যান্ডেড কোম্পানির পোশাক কিনলে কিংবা দাম দিয়ে কাপড় কিনে পোশাক বানিয়ে পরলেও বিষ এড়াতে পারবেন না আপনি। পোশাকের বিষ আপনার শরীরে রোগ ছড়াবেই।

না, এটা আমার কথা নয়। স্টকহোম ইউনিভার্সিটির একদল গবেষক দীর্ঘদিন ধরে রিসার্চ করে জানিয়েছেন, আধুনিক সময়ে কাপড় বানানোর সময় ক্ষতিকারক টক্সিন মেশানো হচ্ছে। আর সেই বিষ মানুষের শরীরে ঢুকে যাচ্ছে দৈনন্দিন ব্যবহারে।

৬০ টি সুইডিশ এবং অন্যান্য দেশের বড় কোম্পানির ব্র্যান্ডেড শার্ট নিয়ে এই পরীক্ষা করেন গবেষকদল। আর তাতেই এই ক্ষতিকারক বিষ ধরা পড়েছে, যে বিষ থেকে থেকে শুধু চর্মরোগ নয়- হতে পারে অন্য রোগও।

গবেষক গিওভানা লুঙ্গো বলেন, ‌’আমরা যা দেখলাম, তা মারাত্মক। ফ্যাশন কিংবা আরামের লোভে মানুষ আজ যে কাপড় বা পোশাক পরছে, কাল এগুলোই শারীরিক অসুস্থতার কারণ হতে পারে। অবিলম্বে এগুলোর উপর ব্যবস্থা নেওয়া দরকার।’



(পরের সংবাদ) »



মন্তব্য চালু নেই