মেইন ম্যেনু

শহীদ মিনারে বিশেষ ব্যবস্থায় শ্রদ্ধা জানাতে অনুমতি লাগবে খালেদার

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস ২১ ফেব্রুয়ারির প্রথম প্রহরে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে বিশেষ ব্যবস্থায় ফুল দিতে গেলে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে অনুমতি নিতে হবে।

অনুমতি ব্যতিত খালেদা জিয়াকে পলাশীর প্রবেশ পথ দিয়ে জনসাধারণের সঙ্গে শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য আসতে হবে। এক্ষেত্রে ভিআইপিদের জন্য নির্ধারিত প্রবেশ ও বের হওয়ার পথও ব্যবহার করতে পারবেন না সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ডিএমপি কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়াকে প্রশ্ন করা হয়, হাইকোর্ট-দোয়েল চত্বর হয়ে শহীদ মিনারে প্রবেশ করবেন রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, ভিআইপি ব্যক্তি ও কূটনীতিকরা। সেই রাস্তা দিয়েই কি সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া প্রবেশ করতে পারবেন?

জবাবে তিনি বলেন, ‘প্রজাতন্ত্রের কর্মকর্তা হিসেবে নিয়ম মেনে চলা আমার কর্তব্য। আমি আগেই বলেছি- রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রিপরিষদের সদস্য ও কূটনীতিকরা শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জানানোর পরে যদি কোনো গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি আমাদের কাছে অনুরোধ করেন, আমরা তাকে দোয়েল চত্বর দিয়েই নির্দিষ্ট সংখ্যক লোক নিয়ে শ্রদ্ধা জানানোর সুযোগ করে দেব।’

ডিএমপি কমিশনার জানান, ২১ ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে রাজধানীতে ২০ হাজার পুলিশ সদস্য নিরাপত্তা রক্ষায় কাজ করবেন। এর মধ্যে শহীদ মিনার ও এর আশপাশে ৯ হাজার পুলিশ সদস্য মোতায়েন থাকবে। তাদের ৮ হাজার পোশাকধারী এবং এক হাজার সাদা পোশাকে গোয়েন্দা পুলিশ।

এ সময় তিনি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস উপলক্ষে ২০ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যার পর থেকে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি এলাকায় যানবাহন চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার কথা জানান।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, চাঁনখারপুল-দোয়েল চত্বর-আজিমপুর ও পলাশীর মোড় পর্যন্ত যানবাহন নিয়ে যেতে পারবেন সাধারণ মানুষ। আর রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও স্পিকার ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে চলে যাওয়ার পর অন্য ভিআইপিরা শহীদ মিনারে প্রবেশ করতে পারবেন।

সাধারণ মানুষ শহীদ মিনারে প্রবেশের ক্ষেত্রে দোয়েল চত্বর ও চাঁনখারপুলের রাস্তা ব্যবহার করতে পারবে না। তবে শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে ওই পথ দিয়ে বের হওয়া যাবে।






মন্তব্য চালু নেই