মেইন ম্যেনু

শাশুড়িরা যেসব কথা পুত্রবধূকে জানতে দেন না

কারো ক্ষেত্রে মধুর, আবার কারো ক্ষেত্রে অম্ল-মধুর বউ-শাশুড়ির সম্পর্কটা। এই সম্পর্কে কখনো কখনো তিক্ততাও উঁকি মারে। তবে সম্পর্ক ভালো, অনেকটা মা ও মেয়ের মতো, এমন শাশুড়ি-বউও রয়েছেন। যখন কোনো মেয়ে বউ হয়ে নতুন সংসারে আসে শাশুড়ি সব কিছু দেখিয়ে দেয়া উচিত।

কিন্তু শাশুড়িরা কিছু বিষয় ইচ্ছা করেই বউদের কাছ থেকে লুকিয়ে থাকেন। এর পেছনে খুব বড় যে কারণ আছে বিষয়টি কিন্তু তেমন নয়।

তবে এমন কিছু বিষয় আছে, যা শাশুড়িরা বউদের কাছে প্রকাশ করেন না। তাহলে দেরি না করে দেখে নিন কোন বিষয়গুলো শাশুড়িরা বউদের কাছে বলেন না।

# প্রত্যেক শাশুড়িই একটু হাফ ছেড়ে বাঁচেন। কারণ তিনি মনে করেন তার ছেলের দেখভালের জন্য তার পর কেউ একজন দায়িত্ব নিল। কিন্তু এই বিষয়টি তিনি কখনোই প্রকাশ করেন না।

# শাশুড়িরা খুব ভালো করেই জানেন যে তার ছেলে এখন আর তার একার নয়। বরং ছেলের প্রতি স্ত্রীর দাবিটা একটু বেশিই। এটা তিনি মনে মনে বোঝেন ঠিকই কিন্তু বউয়ের কাছে ভুলেও এটি প্রকাশ করতে চান না।

# তারা ছেলে এবং ছেলের বউ দুজনেরই ভালো চান। ছেলে ভালো থাকলে বউ ভালো থাকবে এবং বউ ভালো থাকলে ছেলেও ভালো থাকবে। এটা তিনি খুব ভালো করেই জানেন। বউয়ের জন্য তিনি দুশ্চিন্তা করলেও সেটা প্রকাশ করেন না।

# শাশুড়ি তার বউকে পেয়ে মনে মনে খুশিই হন। আর বউ যদি তার সঙ্গে নিজের মায়ের মতো আচরণ করেন তাহলে তো কথাই নেই। কিন্তু এই বিষয়টি বউয়ের কাছে শাশুড়ি ইচ্ছা করেই বলেন না।

# ছেলের বিয়ের পর অনেক শাশুড়িই নিরাপত্তাহীনতায় ভোগেন। ছেলের শ্বশুরবাড়ি যাওয়া ঠিক পছন্দ করেন না তিনি। ছেলের শাশুড়িকে নিজের প্রতিদ্বন্দ্বী ভাবেন ছেলের মা। তবে সবার ক্ষেত্রে এটি সত্যি নয়। এই প্রতিদ্বন্দ্বী বোধ করার কথা অবশ্য তিনি মুখে স্বীকার করেন না।






মন্তব্য চালু নেই