মেইন ম্যেনু

শিকলে বাঁধা সেই মাদরাসা ছাত্রের বাবা ও সুপার আটক

যশোর: জেলার বাঘারপাড়ার মাদরাসায় ‘শিকল দিয়ে বেঁধে রাখা’ সেই শিশু আবুজারের পিতা ও মাদরাসা সুপারকে আটক করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার দুপুরে বাঘারপাড়া থানা পুলিশ তাদের আটক করে। আটককৃতরা হলেন, শিশু আবুজারের পিতা বাঘারপাড়া উপজেলার সদুল্লাপুর গ্রামের বাসিন্দা আবদুল আলীম ও সদুল্লাপুর দড়িলাকুড়ে হাফিজিয়া মাদরাসার সুপার জাহাঙ্গীর আলম। নির্যাতনের শিকার শিশুটি শিকল পড়া অবস্থায় তিনদিন আগে মাগুরায় উদ্ধার হয়েছিলো। এরপর উচ্চ আদালত রুল জারি করায় এ দু’জনকে আটক করা হলো

বাঘারপাড়া থানা পুলিশ জানায়, প্রায় তিন বছর আগে আবুজারকে তার বাবা আবদুল আলীম বাঘারপাড়ার সদুল্লাপুর দড়িলাকুড়ে হাফিজিয়া মাদরাসায় ভর্তি করেন। কিন্তু সেখানে পড়তে না চাওয়ায় মাদরাসার সুপার জাহাঙ্গীর আলম তাকে প্রায়ই নির্যাতন করতেন। এসব কারণে মাঝে মধ্যেই মাদরাসা থেকে পালিয়ে যাওয়ায় পিতার সহযোগিতায় তাকে শিকল দিয়ে বেঁধে রাখা হয়। গত ১৭ এপ্রিল রাতে শেকল বাঁধা অবস্থায় শিশুটি মাদরাসা থেকে পালিয়ে যায়। ওইদিন গভীর রাতে মাগুরা থেকে তাকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে থানায় সোপর্দ করে। পরে তাকে বাঘারপাড়া থানায় পাঠানো হয়।

বিষয়টি নজরে আসলে ২০ এপ্রিল উচ্চ আদালত থেকে ‘কেন অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে না’ তা জানতে চেয়ে একটি রুল জারি করা হয়। একই সঙ্গে নির্যাতিত শিশুটির উপযুক্ত চিকিৎসা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। উচ্চ আদালতের এ নির্দেশনার পর বৃহস্পতিবার বাঘারপাড়া পুলিশ শিশু আবুজারের পিতা আবদুল আলীম ও মাদরাসা সুপার জাহাঙ্গীর আলমকে আটক করেছে। আবদুল আলীমকে তার বাড়ি থেকে এবং জাহাঙ্গীর আলমকে মাদরাসা থেকে আটক করা হয়েছে।

বাঘারপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ছয়রুদ্দিন আহমেদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।






মন্তব্য চালু নেই