মেইন ম্যেনু

শিক্ষক তারানা হালিম, ছাত্রী অপি করিম

সময়টা ১৯৮৮ সাল। রাজধানীর কলাবাগানের একটি কোচিং সেন্টার, নাম সোনার তরী। এখানে শিক্ষকতা করতেন তারানা হালিম। আজকের ডাক ও টেলি যোগাযোগ বিভাগের প্রতিমন্ত্রী। সেসময় তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী। আর এই কোচিং সেন্টারে তখন ছাত্রী ছিলেন অপি করিম। সেটা ছিল প্রাথমিক বৃত্তি পরীক্ষার কোচিং। আজ শনিবার সকালে এই তথ্য জানান অপি করিম। ‘অপি’স গ্লোয়িং চেয়ার’ অনুষ্ঠানের একটি পর্বে অংশ নিয়েছেন তারানা হালিম। তাঁর সঙ্গে আড্ডার শুরুতেই ছিল এই প্রসঙ্গটি। গত শুক্রবার অনুষ্ঠানের এই পর্বটি ধারণ করা হয়। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করছেন অপি করিম।

এদিকে, আজ অভিনেত্রী তারিনও তাঁর ফেসবুকে অপি’স গ্লোয়িং চেয়ার অনুষ্ঠানের কয়েকটি ছবি পোস্ট করেছেন। অনুষ্ঠানটির একটি পর্বে অংশ নিয়েছেন তারিন। তাঁদের দুজনের দুটি পর্ব ধারণ করা হয় একই দিনে। তারিন এখন আছেন কক্সবাজারে, ‘উজান গাঙের নাইয়া’ ধারাবাহিকের শুটিং করছেন।

অনুষ্ঠান প্রসঙ্গে তারিন বলেন, ‘তারানা হালিম আপা ছিলেন বিটিভির ‘নতুন কুঁড়ি’ প্রতিযোগিতার প্রথম চ্যাম্পিয়ন। আমি চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলাম ১৯৮৮ সালে। এই প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে তিনি এসেছিলেন। ছোটবেলায় ওনার সঙ্গে নাটকে কাজ করেছি। বড় হয়ে আর করা হয়নি।

বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ওনার সঙ্গে দেখা হয়। সব সময়ই হাসিমাখা মুখে তিনি আমাকে আদর করেন, বড় বোনের মতো। তিনি মন্ত্রী হওয়ার পরও দেখা হয়েছে। কাল শুক্রবার আমার পরই ওনার পর্বটি ধারণ করা হয়। এর মাঝে ওনার সঙ্গে কিছুক্ষণ কথা বলেছি। এতটুকু পরিবর্তন নেই, যেন এখনো তিনি আমাদের সেই তারানা আপা।’

অনুষ্ঠানটির পরিচালক শাহরিয়ার শাকিল জানিয়েছেন, গত সোমবার থেকে শুক্রবার পর্যন্ত চ্যানেল নাইনের স্টুডিওতে ‘অপি’স গ্লোয়িং চেয়ার’ অনুষ্ঠানের ২২টি পর্ব ধারণ করা হয়। এখানে যাঁরা অংশ নিয়েছেন, তাঁদের মধ্যে রয়েছেন অধ্যাপক আনিসুজ্জামান, শাইখ সিরাজ, ফেরদৌস ওয়াহিদ, ইলিয়াস কাঞ্চন, তারানা হালিম, মাকসুদ, ফেরদৌস আরা, শাকিলা জাফর, আবদুন নূর তুষার, পার্থ বড়ুয়া, তারিন, জয়া আহসান প্রমুখ।

অপি করিম বলেন, ‘তারানা হালিম আপার সঙ্গে আমি যখন প্রথম নাটক করি, তখন খুবই ছোট ছিলাম। এরপর ওনাকে পাই ‘সোনার তরী’ কোচিং সেন্টারে এসে। এখন তিনি সরকারের মন্ত্রী। আমি কিন্তু তাঁর অভিনয়ের ভক্ত। তাঁর নিজস্ব একটি স্টাইল আছে। এটা আমাকে মুগ্ধ করে।’

অপি আরও বলেন, ‘তারিন আপার সঙ্গে ফেসবুকে আমার নিয়মিত যোগাযোগ হয়। যখনই ফেসবুকে কথা হয়, আমরা বলি, চলো মিট করি। কিন্তু ব্যস্ততার কারণে হয়নি। কাল আমরা দারুণ আড্ডা দিয়েছি। আর তিনি তো সবকিছুই সুন্দর করে বলেন। চমৎকার করে তুলে ধরেন।’

শাহরিয়ার শাকিল বললেন, ‘এই অনুষ্ঠানে যারা অতিথি হয়ে এসেছেন, তাঁদের অনেককেই এমন কিছু প্রশ্ন করা হয়েছে, এর আগে এসব প্রশ্নের মুখোমুখি তাঁরা হননি। আশা করছি, দর্শক গাজী টিভিতে এই অনুষ্ঠানের পর্বগুলো দেখে আনন্দ পাবেন।’






মন্তব্য চালু নেই