মেইন ম্যেনু

চাঁদা না দেওয়ায়

শিক্ষার্থীদের মানববন্ধনে যুবলীগের হামলা, আহত অর্ধশত

চাঁদপুরের কচুয়ায় ভুঁইয়ারা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের নিকট জাতীয় শোক দিবস পালনের জন্য চাঁদা দাবিকে কেন্দ্র করে যুবলীগ কর্মীদের হামলায় দু শিক্ষকসহ অর্ধশত শিক্ষার্থী আহত হয়েছে। এর মধ্যে ২২ জনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। বিক্ষুব্ধ জনতা ৩ যুবলীগ কর্মীর বাড়িঘর ভাংচুর করেছে। রোববার সকালে এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, শুক্রবার রাতে যুবলীগ কর্মী মনির প্রধান, লিটন ও ফারুকসহ আরো কয়েকজন ওই বিদ্যালয়ে এসে জাতীয় শোক দিবস পালনের জন্য প্রধান শিক্ষক দুলাল চন্দ্র সরকারের কাছে বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের উপবৃত্তির জন্য আসা টাকা থেকে ১৫ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। এ জন্য তারা প্রধান শিক্ষক দুলাল চন্দ্র সাহাকে শনিবার পর্যন্ত সময় বেঁধে দেয়। সেই টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে তারা শনিবার দুপুরে এসে প্রধান শিক্ষককে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে।

প্রধান শিক্ষককে সন্ত্রাসীদের হাত থেকে বাঁচাতে যেয়ে লাঞ্ছিত হন বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ও হোস্টেল সুপার ফজলুর রহমানও। রাতে ওই ঘটনার জের ধরে সন্ত্রাসীরা আবার সহকারী শিক্ষক ফজলুর রহমানকে মারধর করে।

রোববার সকালে এলাকার অভিভাবক ও বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরা বিদ্যালয়ে এসে ওই ঘটনা জানতে পেরে এর প্রতিবাদে এবং সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারের দাবিতে মানববন্ধন করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করতে থাকে। এসময় ১৫/১৬ জন যুবলীগের নেতাকর্মী লাঠি-সোঠা নিয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। তাদের হামলায় অন্তত দু জন শিক্ষকসহ ৫০ জন শিক্ষার্থী আহত হয়। আহতদের মধ্যে ২২ জনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। বাকিরা প্রাথমিক চিকিৎসা নেয়।

পরে দুপুরে বিক্ষুব্ধ জনতা হামলাকারী যুবলীগ কর্মী ফারুক, মনির ও লিটনের বাড়িঘরে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে।

চাঁদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আশরাফুজ্জামান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, খবর পেয়ে কচুয়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয় এবং পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এ ব্যাপারে মামলা হয়েছে। আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চালানো হচ্ছে।






মন্তব্য চালু নেই