মেইন ম্যেনু

শিশু হত্যার দায়ে ৩ জনের ফাঁসির আদেশ

স্কুলছাত্র শিশু হৃদয় মনিকে (৭) অপহরণের পর হত্যার অভিযোগে ৩ জনকে ফাঁসির রায় দিয়েছেন আদালত।

রোববার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কক্সবাজার জেলা ও দায়রাজজ আদালতের বিচারক সাদেকুল ইসলাম এ রায় দেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন-মিয়ানমারের মৃত মো. শফির ছেলে আব্দুল খালেক (৩৫), মৃত গোলাম বারীর ছেলে আব্দুর শুক্কুর (২৭) ও চট্টগ্রামের লোহাগড়া এলাকার সিরাজ মিয়ার ছেলে বাহাদুর মিয়া। অপর আসামি জসিম উদ্দিনকে (২৫) বেকসুর খালাস দেয়া হয়।

নিহত হৃদয় কক্সবাজার শহরের নুনিয়াছড়া হাজি হাসান আলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশু শ্রেণীর ছাত্র।

স্থানীয় সূত্র জানায়, মামলার বাদী ও হত্যাকাণ্ডের শিকার স্কুল ছাত্র হৃদয় মনির বাবা নুরুল হক জানান, ২০১৩ সালের ৫ জুলাই সকাল ১১টায় ও তার শিশু ছেলে হৃদয় মনি স্কুল থেকে বাড়ি ফেরার পথে একদল অপহরণকারী একটি খেলনার গাড়ি ও নগদ টাকার লোভ দেখিয়ে কৌশলে অপহরণ করে নিয়ে যায়। অপহরণের পর শহরতলির সমিতিপাড়ায় নিয়ে সেখানে একটি বাড়িতে আটক রাখে। অপহরণকারী চক্র ওই দিন দুপুরে তার কাছে তিন লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে ব্যর্থ হয়। পরদিন ৬ জুলাই শিশুটিকে হোটেল সি-প্যালেসের পিছনে সৈকতের বালিয়াড়িতে হত্যা করে ফেলে দেয়।

এ ঘটনায় ওই বছরের ১৬ এপ্রিল তিনি বাদী হয়ে কক্সবাজার সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় বাদীর ভাই মোহাম্মদ আলমসহ ৮ জনকে অভিযুক্ত করা হয়। পরে শিশু হৃদয় মনি হত্যার ঘটনায় অপহৃত শিশুর মুক্তিপণের টাকা আনতে গিয়ে পুলিশ সুগন্ধা পয়েন্ট থেকে এক রিকশাচালক জসিমকে আটক করে।

আটক রিকশাচালক জসিম পুলিশকে জানায়, তাকে ৫ হাজার টাকা দিয়ে ভাড়া করা হয়েছিল মুক্তিপণের টাকা নিয়ে যাওয়ার জন্য। পরে তার স্বীকারোক্তিতে ওই তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এরপর পুলিশের ব্যাপক তদন্তে মামলার এজাহারে ৮ আসামির নাম বাদ দিয়ে আটকদের বিরুদ্ধে আদালতে একই বছর চার্জশিট দাখিল করে।






মন্তব্য চালু নেই