মেইন ম্যেনু

শুক্রাণু হ্রাস করে মোবাইল, হঠাৎ মৃত্যুও হতে পারে…

আধুনিক বিশ্বে মোবাইল ফোন ছাড়া যেন মানুষের একটি দিনও চলে না। তবে এই মোবাইল ফোন ব্যবহারে পুরুষের শুক্রাণু উত্তপ্ত হয়ে যেতে পারে। উল্লেখযোগ্য হারে কমে যেতে পারে সন্তান জন্মদানের ক্ষমতা। এমনকি হঠাৎ মৃত্যুও হতে পারে।

সম্প্রতি প্রকাশিত ইসরাইলী বিজ্ঞানীদের এক গবেষণায় এমনটা বলা হয়েছে। গবেষণাটি বুধবার প্রখ্যাত রিপ্রডাকটিভ বায়োমেডিসিন জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে।

গবেষণায় বলা হয়েছে, যারা হরহামেশা মোবাইল ফোন প্যান্ট অথবা ট্রাউজারের পকেটে রাখেন তাদের শুক্রাণু উত্তপ্ত হয়ে যেতে পারে। পাশাপাশি কমে যেতে পারে শুক্রাণুর পরিমাণ।

আবার মোবাইল চার্জে লাগিয়ে কথা বলা, আর কথা বলা শেষে এটি বিছানার ওপর রেখে দিলেও কমে যেতে পারে শুক্রাণুর পরিমাণ।

মোট ১০৯ জন সক্ষম পুরুষ এই গবেষণায় অংশ নিয়েছে।

গবেষণায় দেখা গেছে, যে সব পুরুষ দৈনিক দুই ঘণ্টার বেশি মোবাইলে কথা বলেন তাদের তুলনায় যারা এক ঘণ্টা কথা বলেছেন তাদের শুক্রাণুর পরিমাণ অনেক বেশি। আবার যারা চার্জ দেয়া অবস্থায় মোবাইলে কথা বলেছেন, তাদের মধ্যে শুক্রাণুর পরিমাণ কমে যাওয়ার পাশাপাশি অন্যান্য সমস্যার উপসর্গও দেখা দিয়েছে।

গবেষণায় দাবি করা হয়েছে, মোবাইল ফোন ব্যবহারে যে হারে শুক্রাণু কমতে থাকে তাতে এক পর্যায়ে পুরুষেরা সন্তান জন্মদানে অক্ষম হয়ে যেতে পারে। এ জন্য বিজ্ঞানীরা মোবাইল ফোনটি ট্রাউজারের পকেটে অথবা মাথার কাছে না রাখার পরামর্শ দিচ্ছেন।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, মোবাইল ফোন থেকে এক প্রকার তড়িৎ চৌম্বকীয় শক্তি নির্গত হয়। আর এই শক্তিই শুক্রাণুকে উত্তপ্ত করে ফেলে। এর প্রভাবে মানুষের হঠাৎ মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে।

তবে এসব সমস্যা থেকে উত্তরণেরও একটি পথ বাতলে দিয়েছেন গবেষকরা। তারা বলছেন, জন্মহার ঠিক রাখা এবং এ সংক্রান্ত অন্যান্য সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে চাইলে ব্যবহারের পর অবশ্যই মোবাইল ফোনটি বন্ধ করে রাখতে হবে। আবার চার্জ দেয়া অবস্থায় কথা বলা যাবে না। আর কটিসন্ধির আশপাশে মোবাইল রাখা যাবে না। -ইন্ডিপেনডেন্ট






মন্তব্য চালু নেই