মেইন ম্যেনু

শেষ বয়সেও কুরআনকে আকঁড়ে রেখেছেন এ বৃদ্ধা

মহান আল্লাহ’র পক্ষ থেকে মুসলিম ধর্মালম্বীদের জন্য শতাব্দির সর্বশ্রেষ্ঠ উপহার মহাগ্রন্থ আল-কুরআন। আল-কুরআনে মহান আল্লাহ পাক জীবন ধারণের জন্য যাবতীয় বিষয়াদি তুলে ধরেছেন। মানুষের জীবন কিভাবে পরিচালনা করা উচিত, কোন কাজের ফল কি হবে অর্থাৎ জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত সবই উল্লেখ্য আছে এই মহা গ্রন্থটিতে।

দুঃখের বিষয়ে হলো অনেকে না পড়ে, না দেখে যুগ যুগ ধরে এই পবিত্র গ্রন্থটির সত্যতা অবিশ্বাস ও সন্দেহ করে আসতেছে। অথচ সেই ১৪০০ বছর আগে নাযিল হওয়া এই পবিত্র গ্রন্থে যা উল্লেখ্য আছে পর্যায়ক্রমে তার প্রমাণ পাচ্ছে সবাই।

আর এই কুর-আনের সম্মান রক্ষায় প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (সা:) যুগ থেকে শুরু করে বর্তমান সময় পর্যন্ত অনেকে তাদের তাজা রক্ত বিলিয়ে দিয়েছে। হয়েছেন শহীদ, হয়তোবা অনেকে হাত পা হারিয়ে পঙ্গুত্ব জীবন-যাপন করছেন।

আমরা মুসলমানরা মানি আল-কুরআন আমাদের পবিত্র গ্রন্থ।কিন্তু এটির জন্য জীবন দেয়া এবং এর আয়াত গুলো ভালোভাবে পড়ে তা অনুধাবনে অনেকটা ব্যর্থ। আমাদের মধ্যে অনেকে আছে মুসলমান যুবক হয়েও আল্লাহ দেয়া তরিকা মোকাবেক চলতে আমরা ব্যর্থ।অথচ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের কল্যাণে দেখা যায় এক বৃদ্ধ জীবনের ক্রান্তি কাল মুর্হুতেও কুরআনকে আকঁড়ে ধরে আছেন।

আসলেই সত্য, আল্লাহ যারে সত্যকারে ভালোবাসে তাদের নেই কোন দুঃখ, নেই কোন ক্লান্তি। আর মহান আল্লাহই আল-কুরআনে ঘোষণা দিয়েছেন, “তোমরা আল্লাহর রজ্জুকে ঐক্যবদ্ধভাবে ধারণ কর এবং পরস্পর বিচ্ছিন্ন হয়ো না।”- আল-কোরআন: (সূরা: আল-ইমরান : ১০৩)






মন্তব্য চালু নেই