মেইন ম্যেনু

শ্রীকৃষ্ণের সঙ্গে নিজেকে তুলনা করলেন নরেন্দ্র মোদি

শ্রীকৃষ্ণ উত্তরপ্রদেশে জন্মে গুজরাটকে তার কর্মভূমি করে তুলেছিলেন। আর ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি গুজরাটেরই ভূমিপুত্র। কিন্তু তার কর্মক্ষেত্র উত্তরপ্রদেশও বটে। এভাবেই কৃষ্ণের প্রসঙ্গ টেনে ভোটের আসর মাতালেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী। গুজরাট যেমন শ্রীকৃষ্ণের কর্মভূমি, উত্তরপ্রদেশ তেমন আমার কর্মভূমি। উত্তর প্রদেশের হরদোইয়ের প্রচারসভায় নিজেকে শ্রীকৃষ্ণের সঙ্গে তুলনা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

নির্বাচনে বিজেপিকে ধাক্কা দিতে জোট বেঁধেছে কংগ্রেস ও সপা। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দুই তরুণ নেতার এই জোটে যথেষ্ট অস্বস্তিতে বিজেপি। কেননা জাতপাত বা ধর্মভিত্তিক রাজনীতি এবারে অন্তত প্রত্যাখান করতে চলেছেন সাধারণ মানুষ। বদলে উন্নয়নকে তারা অনেক গুরুত্ব দিচ্ছেন। মানুষের সেই প্রত্যাশা বুঝেছেন পোড় খাওয়া রাজনীতিবিদ নরেন্দ্র মোদি। দলের গ্রহণযোগ্যতার মুখও যে তিনিই, তার থেকে ভাল তা আর কেউ জানেন না। তাই ভোটের আসর মাতাতে তার কর্মযজ্ঞের বিজ্ঞাপনটিই তুলে ধরলেন। টেনে আনলেন শ্রীকৃষ্ণের প্রসঙ্গ।

শ্রীকৃষ্ণের জন্মভূমিই যে তার কর্মভূমি সে কথা বুঝিয়ে দিলেন। জানালেন, উত্তরপ্রদেশের মানুষ তাকে সন্তানের চোখেই দেখেন। আর তিনি কখনও মা-বাবার সঙ্গে প্রতারণা করবেন না। খোঁচাটা অবশ্যই ছিল অখিলেশ যাদবের জন্য। সাম্প্রতিক অতীতে ভারতীয় রাজনীতিতে বড় জায়গা দখল করে ছিল যাদব পরিবারের দ্বন্দ্ব। বাবা মুলায়ম সিং যাদবের সঙ্গে অখিলেশের মতবিরোধ নানা চমকপ্রদ চিত্রনাট্যের জন্ম দিয়েছে উত্তরপ্রদেশ রাজনীতিতে। অখিলেশ যাদবকে কটাক্ষ করে মোদি বলেন, আমি সেই পুত্র নই যে তার পিতার বিশ্বাস ভঙ্গ করে।

কিন্তু সে সব ছাপিয়েও এগিয়ে গিয়েছেন অখিলেশ। কংগ্রেসের সঙ্গে জোট বেঁধে বিজেপিকে ধাক্কা দিতে তিনি তৈরি। শতাংশের হিসেবে কংগ্রেস-সপার ভোট এবং সেই সঙ্গে সংখ্যালঘু ভোট যোগ হলে বিজেপি যে বিপাকে পড়বে এমনটাই মনে করছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা। সে আশঙ্কা থাকাতেই আগেভাগেই ধর্ম সরিয়ে উন্নয়ন ও আত্মিক সম্পর্কের জায়গাটি তুলে ধরলেন মোদি।






মন্তব্য চালু নেই