মেইন ম্যেনু

ষোড়শ সংশোধনী অবৈধ : রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করবে সরকার

সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিদের অপসারণ সংক্রান্ত সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিল করে হাইকোর্টের দেয়া রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করবে সরকার। বৃহস্পতিবার বিকেলে রায় ঘোষণা পরবর্তী প্রতিক্রিয়ায় নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের এ কথা জানান অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

তিনি বলেন, ‘হাইকোর্ট ষোড়শ সংশোধনীকে অবৈধ ঘোষণা করে যে রায় দিয়েছেন তাতে আমি সংক্ষুব্ধ হয়েছি। রায়ের পর পরই আমরা আদালত থেকে আপিল করার জন্য সরাসরি রায়ের সার্টিফায়েড কপি হাতে পেয়েছি। আমরা এই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করবো।’

একইসঙ্গে আগামী রোববার এই রায়ের কার্যকারিতা স্থগিত চেয়ে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের চেম্বার বিচারপতির আদালতে আবেদন নিয়ে যাবেন করা হবে বলে জানান তিনি।

রায়ের বিরোধিতা করার কারণ জানতে চাইলে মাহবুবে আলম বলেন, ১৯৭২ সালে সংবিধান যখন প্রণয়ন করা হয়েছিল তখন বিচারপতিদের অপসারণের বিষয়টি সংবিধানে উল্লেখ ছিল। কিন্তু পঞ্চম সংশোধনীর মাধ্যমে সামরিক সরকার এটি সংশোধন করে বিচারপতিদের অপসারণের ক্ষমতা সংসদ সদস্যদের হাত থেকে নিয়ে সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিলের হাতে দেয়।

তিনি বলেন, যেহেতু এর আগে সামরিক শাসনামলকে হাইকোর্ট অবৈধ ঘোষণা করেছিলেন সেহেতু তাদের কার্যক্রমও অবৈধ। তাই বিচারপতিদের অপসারণে সামরিক সরকার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছিল সেটিও অবৈধ।

সংবিধান প্রণয়নের সময় যেহেতু সংসদ সদস্যদের হাতেই বিচারপতিদের অভিসংশন বা অপসারণের ক্ষমতা দেয়া হয়েছিল, এখন তারা সেটি ফিরে পেতে চান এ কারণেই হাইকোর্টের ষোড়শ সংশোধনী বাতিল করে দেয়া রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করা হবে বলে জানান তিনি।

বৃহস্পতিবার বিকেলে হাইকোর্টের বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরীর নেতৃত্বে তিন সদস্যের বৃহত্তর বেঞ্চ সংখ্যাগরিষ্ঠ অর্থাৎ দুই জন বিচারপতি সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিল করে রায় দেন। তবে বেঞ্চের অপর একজন বিচারপতি তাদের সঙ্গে দ্বিমত করে দ্বিধাবিভক্ত রায় দেন।

অপরদিকে এই সংশোধনীর বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে দায়ের করা রিটের রায়ে এ সংক্রান্ত আদেশ দেয়া হয়। সংখ্যাগরিষ্ঠের মতামতের ভিত্তিতে এই সংশোধনী বাতিল করা হয়। এর ফলে বিচারপতিদের অপসারণের ক্ষমতা আর জাতীয় সংসদের সদস্যদের হাতে থাকলো না।

২০১৪ সালের সেপ্টেম্বর মাসে সংবিধানের ৯৬ অনুচ্ছেদে সংশোধন করেন সরকার, যা ষোড়শ সংশোধনী নামে পরিচিত।

সংশোধনীতে বলা হয়, ‘প্রমাণিত অসদাচরণ বা অসামর্থ্যের কারণে সংসদের মোট সদস্য-সংখ্যার অন্যূন দুই-তৃতীয়াংশ গরিষ্ঠতার দ্বারা সমর্থিত সংসদের প্রস্তাবক্রমে প্রদত্ত রাষ্ট্রপতির আদেশ ব্যতীত কোনো বিচারককে অপসারিত করা যাইবে না।’






মন্তব্য চালু নেই