মেইন ম্যেনু

সংসদে জাপার ওয়াকআউট

সংসদে তুমুল হট্টোগোলের মধ্যে বিচারপতিদের বেতন-ভাতা বৃদ্ধি সংক্রান্ত বিল উত্থাপন করায় বিরোধী দল জাতীয় পার্টি (জাপা) অধিবেশন থেকে ওয়াকআউট করে। বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদের নেতৃত্বে জাতীয় পার্টির সদস্যরা বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টা ৪০ মিনিটে হইচই করতে করতে সংসদ থেকে বেরিয়ে যান। যদিও পরে ৫টা ৪৩ মিনিটে আবার তারা সংসদে ফিরে আসেন। মাত্র ৩ মিনিটের জন্য ওয়াকআউট করে বিলের বিরোধিতা করে জাপা।

এর কিছুক্ষণ আগেই আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক সুপ্রিম কোর্ট জাজেস রিমুনারেশন অ্যান্ড প্রিভিলেজেস বিল-২০১৬ উত্থাপনের জন্য দাঁড়ালে বিরোধী দলের সদস্যরা হইচই করে বলতে থাকেন, ষড়োশ সংশোধনী নিয়ে রায়ের সমাধান না হওয়া পর্যন্ত এই বিল আমরা উত্থাপন করতে দিতে পারি না। কিছু কিছু সংসদ সদস্য এ সময় চিৎকারও করেন। স্পিকার তাদের নিবৃত্ত্ব করার চেষ্ঠা করে ব্যর্থ হন।

এসময় আইনমন্ত্রী দাঁড়িয়ে স্পিকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলতে থাকেন, ‘মাননীয় স্পিকার আমার কিছু বলার আছে, ওনাদের শান্ত হতে বলুন।’ এরপর স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী বিচারপতিদের বেতন ও ভাতা বাড়ানোর বিলটি আইনমন্ত্রীকে উত্থাপনের আহ্বান জানান।

এরই মধ্যে স্পিকার আইনমন্ত্রীকে ফ্লোর দিলে আনিসুল হক ‘সুপ্রিম কোর্ট জাজেস রিমুনারেশন অ্যান্ড প্রিভিলেজেস অ্যামেন্ডমেন্ট বিল’ সংসদে উত্থাপন করতে গেলে জাতীয় পার্টির এমপিরা আবারো হট্টগোল করতে থাকেন। তখন জাতীয় পার্টির জিয়াউদ্দিন বাবলুর উদ্দেশে স্পিকার বলেন, ‘আপনারা বিল উত্থাপনের বিরোধিতা করতে পারেন। কিন্তু আগে তা উত্থাপণ করতে দিন, পরে বিরোধিতা করবেন, সে অধিকার সকল সংসদ সদস্যের রয়েছে।’

বাবলু তখন বলেন, ‘তারা (বিচারপতি) যদি জাতীয় সংসদের আইন বাতিল করতে পারে, তাহলে তো তারা নিজেরাই নিজেদের বেতন-ভাতা বাড়িয়ে নিতে পারেন। কোর্ট আজকে যে রায় দিয়েছে, তা অপমানজনক। যে রায় দেয়া হয়েছে তা বাতিল না হওয়া পর্যন্ত বিলটা স্থগিত করে সংসদের প্রতি সম্মান দেখানো হোক।’

প্রবল বিরোধিতার মুখে আনিসুল হক বলেন, ‘বিচারপতিরা অবিবেচক হতে পারেন। সংসদ অবিবেচক না। যে রায় লিখুক না কেন, যে রায় দিক না কেন… আমরা হীনমন্যতার শিকার হবো না। আমরা উদারতা দেখাব। তারা রায় দিতে পারেন কিন্তু সংসদও আইন করতে পারে।’






মন্তব্য চালু নেই