মেইন ম্যেনু

সকালে ভালো থাকার জন্য রাতে যা করবেন

আরামের ঘুম হারাম করে কর্মজীবীদের সকালেই জেগে উঠতে হয়। আর এ কারণে সকাল সকালই অনেকের মেজাজ বিগড়ে থাকে, সারাটা দিনই খারাপ যায়। আপনার ক্ষেত্রেও এমনটা হয়ে থাকলে ঘুমানের পূর্বপ্রস্তুতি হিসেবে কিছু কাজ আপনার সকালটা চনমনে করে তুলবে।

ঘুমের আগে খাবার ও পানীয়:
ঘুমাতে যাবার আগে চা কফি একেবারেই নয়। ভালো ঘুম চাইলে লাঞ্চের পর কোনো ক্যাফেইন জাতীয় পানীয় গ্রহণ করবেন না। রাতের খাবারে চকলেট, ভারী প্রোটিন ও ফ্যাট জাতীয় খাবার এমনকি খুব ঝাল ও মশলাদার খাবার খেলেও অনেকের সমস্যা হতে পারে। খুব বেশি পেট ভরে খাওয়াটাও অনুচিত। এর চাইতে পান করতে পারেন ঘুমের জন্য উপকারী কিছু পানীয়। খেতে পারেন ঘুমের জন্য উপকারী কিছু স্ন্যাক্স।

ঘর গুছিয়ে ঘুমান:
ঘুমাতে যাবার আগে নিজের ঘর, কাজের জায়গা, অফিসে যাবার ব্যাগ, পোশাক আশাক, কাগজপত্র গুছিয়ে রাখুন। এতে সকালে ঘুম থেকে উঠে যেমন প্রশান্তি লাগবে, তেমনি অফিসে যাবার সময়ে হুড়োহুড়ি করতে হবে না।

কাজের লিস্ট তৈরি করুন:
সকাল থেকে শুরু করে সারাদিন কী কী করতে হবে সেগুলো মনে রাখার চাইতে লিখে রাখলে সুবিধা হবে বেশি। এতে ভুলে যাবার আশংকা থাকবে না। আর কোনো কিছু ভুলে গেছেন কিনা সেই দুশ্চিন্তাও আপনাকে তাড়া করবে না।

ইলেকট্রনিক্স বন্ধ করে ঘুমাতে যান:
সারারাত ফোন, ল্যাপটপ অন রেখে দিলে ঘুমের ক্ষতিই হবে, কোনো উপকার হবে না। আর ঘুম ঠিকমতো না হলে অবশ্যই সকালটা শুরু হবে খারাপভাবে। বিছানায় কোনো ইলেকট্রনিক্স নিয়ে ঘুমাবেন না। বরং ঘুম না আসলে একটা বই নিয়ে পড়া শুরু করুন।

নিজের শরীরের কথা শুনুন:
বারবার চোখ চুলকাচ্ছেন, শরীর ভেঙ্গে ঘুম আসছে এর পরেও আপনি টিভি বা ল্যাপটপের সামনে বসে আছে- এটা ন করাই ভালো। আপনার শরীর ক্লান্ত হয়ে থাকলে ঘুমিয়ে যান। এতে ঘুম থেকে উঠে নিজেকে অনেক ফ্রেশ মনে হবে।

পর্দা একটু সরিয়ে ঘুমাতে যান:
এতে কী হবে? সকালে সুর্য উঠলে আপনার মুখে রোদ পড়বে। সকালের এই রোদ আপনার শরীর থেকে ঘুমঘুম ভাবটা দূর করতে সাহায্য করবে দারুণ।

ঘুমানোর আগে ব্যায়াম করবেন না:
ঘুমানোর আগে হালকা ইয়োগা করাটা ভালো হতে পারে। কিন্তু ঘুমানোর ঠিক আগে কোনো ব্যায়াম, বিশেষ করে ভারী কোনো ব্যায়াম করবেন না। এটা আপনার ঘুম তাড়িয়ে দেবে, আপনাকে জাগিয়ে দেবে আরও বেশি। ফলে আপনি সময়মত ঘুমাতে পারবেন না, সময়মত ঘুম থেকে উঠতেও পারবেন না।






মন্তব্য চালু নেই