মেইন ম্যেনু

সঞ্চয়ের সবচেয়ে সহজ ৩টি উপায়

টাকা সঞ্চয় করা সেই কাজগুলোর অন্তর্ভুক্ত যা বলা সহজ কিন্তু করা কঠিন। আমরা সকলেই জানি অর্থ সঞ্চয় করা ভবিষ্যৎ সচ্ছলতার জন্য প্রয়োজনীয়। আপনি কিভাবে আপনার কষ্টার্জিত টাকা ব্যয় করছেন বা কাজে লাগাচ্ছেন তা আপনার জীবনের উপর প্রভাব ফেলবে। সঞ্চয় করার কিছু নিয়ম অনুসরণ করলে আপনার জন্য সঞ্চয় করাটা সহজ হয়ে যাবে। আসুন জেনে নেই সেই উপায়গুলো।

১। আপনার উপার্জনের তুলনায় কম খরচ করুন

এটি খুবই সহজ একটি ধারণা। কিন্তু এটি বাস্তবায়িত করা অনেকের জন্যই কঠিন হয়ে যায়। আপনার মাসিক উপার্জনের একটি তালিকা করুন এবং পাশাপাশি আপনার খরচেরও একটি তালিকা করুন। যদি প্রথমটি থেকে দ্বিতীয়টি বেশি হয় তাহলে আপনার খরচের তালিকা থেকে কিছু বিষয় বাদ দিতে হবে। যতদিন না আপনার দ্বিতীয় তালিকাটি প্রথম তালিকা থেকে কম হচ্ছে ততদিন আপনার কোন কোন কাজ বা অভ্যাসগুলো ত্যাগ করা যায় তা আপনাকেই নির্ধারণ করতে হবে, যেমন- কর্মক্ষেত্র কাছাকাছি হলে যানবাহনের পরিবর্তে হেঁটে যাওয়া আসা করুন, সকালের কফি খাওয়ার অভ্যাসটি বাদ দিতে পারেন ইত্যাদি।

২। প্রথমে নিজেকে দিন

সংরক্ষণের জন্য আপনার বাজেট করা প্রয়োজন। মাসের শুরুতেই কিছু টাকা সরিয়ে রাখুন। এর ফলে আপনার হাতে যে পরিমাণ টাকা থাকবে তাই দিয়ে আপনি চলার চেষ্টা করবেন এবং তুলে রাখা টাকা কোথাও বিনিয়োগ করুন। এতে আপনার সঞ্চয় বৃদ্ধি পাবে।

৩। ভবিষ্যৎ থেকে ঋণ না করা

আপনি হয়তো শনিবারে বেতন পাবেন বলে মঙ্গলবার থেকেই অন্যের কাছ থেকে ধার করা শুরু করলেন যা আপনি না করলেও পারতেন। অথবা আগামি বছর আপনার অনেক বেশি টাকা উপার্জনের সম্ভাবনা আছে বলে কিছু বন্ধক রেখে টাকা ধার নিলেন। এটা খুবই খারাপ একটি অভ্যাস। তাই নিজের আয় অনুযায়ী ব্যয় করা উচিৎ।

গুরুত্বপূর্ণ আর্থিক নিয়মাবলী পরিবর্তিত হয় না। যা আপনার পূর্বপুরুষ করেছিলেন তা হয়ত আপনার জন্য প্রযোজ্য নয়। আপনার অর্থের ব্যবস্থাপনার জন্য সবসময়ই নতুন ও ভালো কিছু থাকবে। কিন্তু আয়ের চেয়ে কম ব্যয় করাটা সব সময়ের জন্যই উপকারি, টাকা ফেলে না রেখে কাজে লাগানোটাও সবসময়ের জন্যই ভালো, টাকা হাতে আসা মাত্র খরচ করে ফেলার চাইতে ভবিষ্যতের পরিকল্পনা করাটাও জরুরী।






মন্তব্য চালু নেই