মেইন ম্যেনু

সত্য তুলে ধরায় ঢাবিতে ছাত্রলীগের হামলা : ছাত্রদল

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ৯৫তম স্মারক গ্রন্থে ‘সত্য’ ইতিহাস তুলে ধরায় উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিকের প্রতি হামলা ও গাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে বলে দাবি করেছে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদ।

শুক্রবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি রাজিব আহসান ও সাধারণ সম্পাদক মো. আকরামুল হাসান এ দাবি করেন।

তারা বলেন, `ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৯৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর স্বরণিকায় শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানকে (বীর উত্তম) বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি হিসেবে জনগণের দাবির সঙ্গে একাত্মতা পোষণ করে তুলে ধরায় ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীদের বিশ্ববিদ্যালয়ে ভাঙচুর এবং রেজিস্টার অফিসে আগুন দেয়াসহ বিভিন্ন সন্ত্রাসী কার্মকাণ্ড চালিয়েছে। আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।`

নেতৃদ্বয় বলেন, `কথায় আছে সত্য বললে তা কখনো মনে রাখার প্রয়োজন পড়ে না। কিন্তু আওয়ামী লীগ ও এই অবৈধ সরকার বাংলার ইতিহাসকে নিজেদের মত করে সাজাতে গিয়ে পুরো ইতিহাসকে ক্ষতবিক্ষত করে ফেলেছে। ঐতিহাসিক সত্যকেও তারা চেপে যাওয়ার চেষ্টা করছে। শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি এটি একটি ঐতিহাসিক সত্য। সত্যপ্রিয় ও বিবেকবান যে কোনো মানুষই বিষয়টির সঙ্গে একমত। কিন্তু আওয়ামী লীগ মুক্তিযুদ্ধের মত ঐতিহাসিক সত্যগুলোকেও বিকৃত ও ভুল তথ্য সন্নিবেশনের অপকৌশলে মেতেছে।`

নেতারা আরও বলেন, `নতজানু ঢাবি উপাচার্য, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আর পোষা ইতিহাসবিদরা বর্তমান অবৈধ সরকারের সঙ্গে আতাত করে যতই ইতিহাস বিকৃত করার চেষ্টা করুক না কেন, তা প্রকাশ হবেই। সত্য আর আগুন কখনো চাপা থাকে না। শহীদ জিয়া বাংলার সবচেয়ে জনপ্রিয় মানুষ হিসেবে বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি হয়েছিলেন, তার সেই স্থান এখনো বাংলার মানুষের মনে অক্ষুন্ন আছে এবং থাকবে।`

তারা বলেন, `সত্যকে আওয়ামী লীগ কখনো মেনে নিতে শিখেনি, সেজন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন যখন একটি ঐতিহাসিক সত্য জাতির সামনে তুলে ধরেছেন তখন ছাত্রলীগ দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্টার রুমসহ বিভিন্ন যায়গায় আগুন দিয়েছে এবং ভাঙচুর চালিয়েছে, যা কখনো কাম্য হতে পারে না।`

নেতৃদ্বয় অবিলম্বে হামলার সঙ্গে জড়িত ছাত্রলীগদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।






মন্তব্য চালু নেই